ঈসা আ. পূনঃ আগমন করবেন এই আখেরী জামানায় – কুরআন ও হাদিস থেকে

Spread the love
image_pdfimage_print

ঈসা ইবনে মারইয়াম আ. পূনঃ আগমন করবেন এই আখেরী জামানায় – কুরআন ও হাদিস থেকে

 

بِسْمِ اللہِ الرَّحْمٰنِ الرَّحِیۡمِ

الحمد لله و الصلاة و السلام على رسوله محمد و على أله و أمّته

 

[উল্লেখ্য, নিম্নে ঈসা ইবনে মারইয়াম (আ.) সম্পর্কিত উল্লেখিত আয়াতে কারিমা, হাদিস ও আছার সমূহ ও তার অনুবাদ গুলিকে কোনো বিজ্ঞ মুহাক্কেক আলেমের পরামর্শ ব্যাতীত কারো কাছে বর্ণনা করা থেকে বিরত থাকার পরামর্শ দিচ্ছি, যাতে আমার অযোগ্যতার কারণে এখানে কোনো উল্লেখযোগ্য ভুল হয়ে থাকলে তা সংশোধন করে নেয়ার আগেই মানব সমাজে ছড়িয়ে না যায়। এগুলো পড়ুন ইলম অর্জনের জন্য এবং যোগ্য আলেম থেকে তা বুঝিয়ে নিন। আর কোনো যোগ্য চোখে উল্লেখযোগ্য ভুল ধরা পড়লে তা আমাকে অবগত করুন।] 

 
আল্লাহ তাআলা কুরআন কারিমে এরশাদ করেন-
 
إِذْ قَالَ اللَّهُ يَا عِيسَىٰ إِنِّي مُتَوَفِّيكَ وَرَافِعُكَ إِلَيَّ وَمُطَهِّرُكَ مِنَ الَّذِينَ كَفَرُوا وَ جَاعِلُ الَّذِينَ اتَّبَعُوكَ فَوْقَ الَّذِينَ كَفَرُوا إِلَىٰ يَوْمِ الْقِيَامَةِ  ۖ  ثُمَّ إِلَيَّ مَرْجِعُكُمْ فَأَحْكُمُ بَيْنَكُمْ فِيمَا كُنتُمْ فِيهِ تَخْتَلِفُونَ     
“যখন আল্লাহ বলেছিলেন: হে ঈসা! নিশ্চই আমি তোমাকে (কাফেরদের থেকে আমার বিশেষ নিরাপত্তায়) নিয়ে নিবো এবং আমার কাছে (আসমানে) তোমাকে তুলে/উঠিয়ে নিবো এবং যারা কফরী করেছে তাদের থেকে তোমাকে পবিত্র (মুক্ত) করবো। এবং যারা কুফরী করবে, তাদের উপরে আমি ওই সকল (মুমিন ব্যাক্তিদের)কে কেয়ামত পর্যন্ত সমুন্নত রাখবো, যারা তোমার অনুগত্য-অনুসরণ করবে। অতঃপর তোমাদেরকে আমারই কাছে ফিরে আসতে হবে। তখন আমি তোমাদের মাঝে মিমাংসা করে দিবো, যে ব্যাপার নিয়ে তোমরা (পৃথিবীতে) দ্বন্দ্ব-মতবিরোধ করতে”। [সূরা আল-ইমরান ৫৫]
 
يَسْأَلُكَ أَهْلُ الْكِتَابِ أَن تُنَزِّلَ عَلَيْهِمْ كِتَابًا مِّنَ السَّمَاءِ ۚ فَقَدْ سَأَلُوا مُوسَىٰ أَكْبَرَ مِن ذَٰلِكَ فَقَالُوا أَرِنَا اللَّهَ جَهْرَةً فَأَخَذَتْهُمُ الصَّاعِقَةُ بِظُلْمِهِمْ ۚ ثُمَّ اتَّخَذُوا الْعِجْلَ مِن بَعْدِ مَا جَاءَتْهُمُ الْبَيِّنَاتُ فَعَفَوْنَا عَن ذَٰلِكَ ۚ وَآتَيْنَا مُوسَىٰ سُلْطَانًا مُّبِينًا – وَرَفَعْنَا فَوْقَهُمُ الطُّورَ بِمِيثَاقِهِمْ وَقُلْنَا لَهُمُ ادْخُلُوا الْبَابَ سُجَّدًا وَقُلْنَا لَهُمْ لَا تَعْدُوا فِي السَّبْتِ وَأَخَذْنَا مِنْهُم مِّيثَاقًا غَلِيظًا – فَبِمَا نَقْضِهِم مِّيثَاقَهُمْ وَكُفْرِهِم بِآيَاتِ اللَّهِ وَقَتْلِهِمُ الْأَنبِيَاءَ بِغَيْرِ حَقٍّ وَقَوْلِهِمْ قُلُوبُنَا غُلْفٌ ۚ بَلْ طَبَعَ اللَّهُ عَلَيْهَا بِكُفْرِهِمْ فَلَا يُؤْمِنُونَ إِلَّا قَلِيلًا – وَبِكُفْرِهِمْ وَقَوْلِهِمْ عَلَىٰ مَرْيَمَ بُهْتَانًا عَظِيمًا – وَقَوْلِهِمْ إِنَّا قَتَلْنَا الْمَسِيحَ عِيسَى ابْنَ مَرْيَمَ رَسُولَ اللَّهِ وَمَا قَتَلُوهُ وَمَا صَلَبُوهُ وَلَٰكِن شُبِّهَ لَهُمْ ۚ وَإِنَّ الَّذِينَ اخْتَلَفُوا فِيهِ لَفِي شَكٍّ مِّنْهُ ۚ مَا لَهُم بِهِ مِنْ عِلْمٍ إِلَّا اتِّبَاعَ الظَّنِّ ۚ وَمَا قَتَلُوهُ يَقِينًا – بَل رَّفَعَهُ اللَّهُ إِلَيْهِ ۚ وَكَانَ اللَّهُ عَزِيزًا حَكِيمًا 
“(হে নবী মুহাম্মাদ!) ‘আহলে কিতাব’ (ইহূদীরা) তোমার কাছে আবদার করে যে, তাদের উপরে আসমান থেকে (কোনো লিখিত) কিতাব নাজিল করা হোক। বস্তুত: (সত্যকে কবুল না করার এজাতীয় ছলচাতুরীপূর্ণ দাবী এদের নতুন নয়। এদের পূর্বের ইহূদীরা) মুসার কাছে এর থেকে (আরো অনেক) বড় আবদার করেছিল। তখন তারা (মুসাকে) বলেছিল, ‘আমাদেরকে প্রকাশ্যে (সরাসরি) আল্লাহ’কে দেখাও’। ফলে বজ্রপাত তাদেরকে পাকড়াও করেছিল তাদের জুলুমের কারণে। অত:পর তাদের কাছে (আমার পক্ষ থেকে) সুস্পষ্ট-নিদর্শন আসার পরও তারা বাছুরকে (উপাস্য হিসেবে) গ্রহন করে নিয়েছিল। পরে আমরা তা ক্ষমা করে দিয়েছিলাম। বস্তুত: মুসাকে আমরা দিয়েছিলাম সুস্পষ্ট প্রমাণ। আর (আমার নির্দেশের উপরে) তাদেরকে (আমল করানোর স্বপক্ষে) অঙ্ঘিকার করাতে আমরা তাদের (মাথার) উপরে তুলে ধরেছিলাম তূর (পাহাড়)কে। আর তাদেরকে আমরা বলেছিলাম, তোমরা দ্বারপথে প্রবেশ করো সিজদাহরত: অবস্থায়। আর আমরা তাদেরকে (আরো) বলেছিলাম, তোমরা শনিবারের ব্যাপারে সীমালঙ্ঘন করো না। আর তাদের থেকে আমরা নিয়েছিলাম সুদৃঢ় প্রতিশ্রুতি। পরে তাদের অঙ্ঘিকার লঙ্ঘন, আল্লাহ’র আয়াতসমূহের সাথে তাদের কুফরী, না-হক্ব ভাবে (আমার প্রেরিত) নবীগণকে হত্যা করা এবং তাদের (এজাতীয়) কথা (বলা যে,) ‘আমাদের অন্তরগুলো আচ্ছাদিত’ -এ(সব) কারণে (তাদেরকে পাকড়াও করা হয়েছিল)। বরং, আল্লাহ ও(ই অন্তর)গুলোর উপরে মোহর মেড়ে দিয়েছেন তাদের কুফরীর কারণে। কাজেই, তাদের অল্প সংখ্যক ব্যতীত কেউ ইমান আনবে না। আর (এমনি পরবর্তীতে আমাদের প্রেরিত রাসুল ঈসা ও ইঞ্জিলের সাথে) তাদের (প্রদর্শিত) কুফরী, (ঈসা) ইবনে মারইয়ামের উপরে গুরুতর অপবাদ (আরোপ) এবং তাদের (কটাক্ষ ও তাচ্ছিল্লপূর্ণ কুফরী) কথা -‘আল্লাহ’র রাসুল (বলে দাবীদার এই কথিত) আল-মিাসিহ ঈসা ইবনে মারইয়ামকে আমরা হত্যা করে ফেলেছি’ – এ(সবে)র কারণে (তাদেরকে পাকড়াও করা হয়েছিল)। অথচ (সত্য হল) তারা তাঁকে হত্যাও করেনি, তারা তাঁকে ক্রসবিদ্ধও করেনি। বরং (গোটা বিষয়টিতেই) তাদের (মারাত্মক) বিভ্রম ঘটেছিল। আর নিশ্চই যারা এ ব্যাপারে দ্বন্দ্ব সৃষ্টি করছে, তারা তাঁর ব্যাপারে অবশ্যই সন্দেহে রয়েছে। এব্যাপারে তাদের কাছে (সত্য) জ্ঞানের কিছু নেই; আছে কেবল (নিজেদের কিছু চিন্তা প্রসূত) ধারনার অনুসরণ। নিঃসন্দেহে তারা তাঁকে হত্যা করেনি। বরং আল্লাহ তাকে (আসমানে) তাঁর (নিজের) কাছে (নিরাপদে) তুলে/উত্তোলন করে নিয়েছেন। আর আল্লাহ হলেন মহাপরাক্রমশালী মহাপ্রজ্ঞাময়”। [সূরা নিসা ১৫৩-১৫৮]
 
وَ لَمَّا ضُرِبَ ابْنُ مَرْيَمَ مَثَلًا إِذَا قَوْمُكَ مِنْهُ يَصِدُّونَ – وَقَالُوا أَآلِهَتُنَا خَيْرٌ أَمْ هُوَ ۚ مَا ضَرَبُوهُ لَكَ إِلَّا جَدَلًا ۚ بَلْ هُمْ قَوْمٌ خَصِمُونَ – إِنْ هُوَ إِلَّا عَبْدٌ أَنْعَمْنَا عَلَيْهِ وَجَعَلْنَاهُ مَثَلًا لِّبَنِي إِسْرَائِيلَ – وَ لَوْ نَشَاءُ لَجَعَلْنَا مِنكُم مَّلَائِكَةً فِي الْأَرْضِ يَخْلُفُونَ – وَ إِنَّهُ لَعِلْمٌ لِّلسَّاعَةِ فَلَا تَمْتَرُنَّ بِهَا وَ اتَّبِعُونِ ۚ هَٰذَا صِرَاطٌ مُّسْتَقِيمٌ
“(হে নবী মুহাম্মাদ!) যখনই (ঈসা) ইবনে মারইয়ামের উদাহরণ পেশ করা হয়, তখনই তোমার কওম তাঁর ব্যাপারে চিৎকার জুড়ে দেয় এবং বলে, ‘(আমরা আমাদের উপাস্যদের ইবাদত করলে দোষ হয়! এদিকে খৃষ্টানরাও তো ঈসা’র ইবাদত করে।) আমাদের উপাস্যরা উত্তম, নাকি সে’? তারা তোমার কাছে এ(জাতীয় উদাহরণ) পেশ করে শুধুমাত্র তর্কের জন্য। বরং তারা হল (একটা) ঝগড়াটে (তর্কবাজ) কওম। সে তো (আমার একনিষ্ঠ একজন) বান্দা, যার উপরে আমরা (রিসালাতের মতো মর্যাদাবান) নিয়ামত দিয়েছিলাম এবং তাকে বনী ইসরাঈলের জন্য বানিয়েছিলাম (অনুকরণীয় আদর্শের এক উজ্জল) নমুনা। আমরা যদি চাইতাম, তাহলে জমিনে তোমাদের মধ্য থেকে ফেরেশতা বানাতে পারতাম। (তখন আমার প্রতিনিধিত্ব করার জন্য) তারা (তোমাদের) স্থাভিষিক্ত হতো। আর নিশ্চই সে কেয়ামতের (একটি বড় আলামত ও) নিদর্শন। তোমরা সে ব্যাপারে কোনো সংশয় পোষন করো না। আর তোমরা (আমার) অনুগত্যকারী হয়ে যাও। এটাই সিরাতে মুস্তাকীম (সরল সঠিক পথ)”। [সূরা যখরুফ ৫৭-৬১]
 
এখানে উপরোক্ত আয়াতগুলির বিস্তারিত ব্যাখ্যা পেশ করা সম্ভব নয়। তবে আহলুস সুন্নাহ ওয়াল জামাআহ নির্ভরযোগ্য হাদিসের আলোকে এসকল আয়াতে কারিমার যে সকল ব্যাখ্যা পেশ করেছেন, তার সারমর্ম হল, ঈসা ইবনে মারইয়াম আ.-কে আল্লাহ তাআলা কাফেরদের হাত হতে রক্ষা করে আসমানে জীবিত অবস্থায় তুলে নিয়েছেন, তিনি সেখানে এখনও জীবিত আছেন, তিনি শেষ জামানায় আবারো আসমান থেকে নাজিল হবেন, দাজ্জালকে হত্যা করবেন, তারপর ন্যায়বিচারক ও ইনসাফগার হাকেম (শাসক) হিসেবে কিছুকাল জীবিত থাকার পর মৃত্যু বরন করবেন।
 
আখেরী জামানার হাদিস ও আছার সমূহ একত্রিত করলে বোঝা যায়, প্রথমে ইমাম মাহদী রা. আসবেন, তারপর দাজ্জাল আবির্ভূত হবে, তারপরে ঈসা আ. আসমান থেকে নাজিল হয়ে দাজ্জালকে হত্যা করবেন। তারপর ইয়াজুজ মাজুজ বের হয়ে সকলে মাড়া যাবে। এরপর ঈসা আ. পুরো দুনিয়ার শাসক হবেন এবং বেশ কিছুকাল ইনসাফের সাথে শাসনকার্য চালানোর পর ইন্তেকাল করবেন। নিম্নের হাদিস ও আছারগুলো লক্ষ্য করুন।
 
# হুযাইফা ইবনে আসিদ আল-গিফারী রা. থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন: اطلع النبي صلى الله عليه وسلم علينا ونحن نتذاكر فقال ما تذاكرون قالوا نذكر الساعة قال إِنَّهَا لَنْ تَقُومَ حَتَّى تَرَوْنَ قَبْلَهَا عَشْرَ آيَاتٍ. فذكر -الدُّخَانَ، وَالدَّجَّالَ، وَالدَّابَّةَ، وَطُلُوعَ الشَّمْسِ مِنْ مَغْرِبِهَا، وَنُزُولَ عِيسَى ابْنِ مَرْيَمَ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ، وَيَأَجُوجَ وَمَأْجُوجَ، وَثَلَاثَةَ خُسُوفٍ: خَسْفٌ بِالْمَشْرِقِ، وَخَسْفٌ بِالْمَغْرِبِ، وَخَسْفٌ بِجَزِيرَةِ الْعَرَبِ، وَآخِرُ ذَلِكَ نَارٌ تَخْرُجُ مِنَ الْيَمَنِ، تَطْرُدُ النَّاسَ إِلَى مَحْشَرِهِمْ . رواه مسلم , كتاب الفتن وأشراط الساعة , باب في الآيات التي تكون قبل الساعة : ٤/٢٢٢٥ رقم ٢٩٠١ ; وأبو داود : ٤٣١١ ، والترمذي : ٢١٨٣‘আমরা আলোচনা করছিলাম এমন সময় রাসুলুল্লাহ ﷺ আমাদের কাছে এসে জিজ্ঞেস করলেন- তোমরা কি অলোচনা করছো? তারা বললেন: আমরা কিয়ামতের আলোচনা করছি। রাসুলুল্লাহ ﷺ এরশাদ কবলেন- إنها لن تقوم حتى تروا قبلها عشر آيات – ওটা ততক্ষন পর্যন্ত সংঘটিত হবে না, যাবৎ না তোমরা (মুসলমানরা) ১০ টি আলামত দেখে নাও। তারপর উল্লেখ করলেন- (১) الدخان (দুখান/ধুয়া), (২) الدجال (দাজ্জাল), (৩) الدابة (দাব্বাহ/জন্তু), (৪) طلوع الشمس من مغربها (পশ্চিম দিক থেকে সূর্যদয়), (৫) نزول عيسى ابن مريم (ঈসা ইবনে মারইয়ামের অবতরণ), (৬) يأجوج ومأجوج (ইয়াজুজ মাজুজ), এবং তিনটি ভূমিধ্বস (৭) خسف بالمشرق (পশ্চিমাঞ্চলের ভূমিধ্বস), (৮) خسف بالمغرب (পূর্বাঞ্চলের ভূমিধ্বস) ও (৯) خسف بجزيرة العرب (জাজিরাতুল আরবের ভূমিধ্বস), এবং সর্বশেষে (১০) نار تخرج من اليمن تطرد الناس إلى محشرهم (আগুন যা ইয়ামেন থেকে বের হয়ে মানুষকে ধেয়ে নিয়ে যাবে তাদের একত্র হওয়ার স্থানে)। [সহিহ মুসলীম– ৪/২২২৫ হাদিস ২৯০১; সুনানে আবু দাউদ, হাদিস ৪৩১১; সুনানে তিরমিযী, হাদিস ২১৮৩; মুসনাদে আহমাদ-৪/৬]
 
# যাবের বিন আব্দুল্লাহ রা.-এর সূত্রে বর্ণিত হয়েছে, রাসুলুল্লাহ সা. এরশাদ করেন-  لاَ تَزَالُ طَائِفَةٌ مِنْ أُمَّتِي يُقَاتِلُونَ عَلَى الْحَقِّ ظَاهِرِينَ إِلَى يَوْمِ الْقِيَامَةِ ، قَالَ فَيَنْزِلُ عِيسَى ابْنُ مَرْيَمَ صلى الله عليه وسلم فَيَقُولُ أَمِيرُهُمْ تَعَالَ صَلِّ لَنَا ‏.‏ فَيَقُولُ لاَ ‏،‏ إِنَّ بَعْضَكُمْ عَلَى بَعْضٍ أُمَرَاءُ ‏.‏ تَكْرِمَةَ اللَّهِ هَذِهِ الأُمَّةَ ‏.‏ رواه مسلم في الصحيح , كتاب الإيمان , باب نُزُولِ عِيسَى ابْنِ مَرْيَمَ حَاكِمًا بِشَرِيعَةِ نَبِيِّنَا مُحَمَّدٍ صلى الله عليه وسلم : ١/١٣٧ رقم ١٥٦ ; و أحمد في مسنده : ٣/٣٨٤ اسناده صحيح – “আমার উম্মতের একটি গোষ্ঠি কেয়ামত পর্যন্ত সর্বদা সত্যের উপর বিরাজমান (থেকে) জিহাদ করতে থাকবে’। তিনি বলেন: ‘পরে (শেষ জামানার মুসলমানদের) মাঝে ঈসা ইবনে মারইয়াম (আসমান থেকে পূণরায়) নাজিল হবেন। পরে তাদের আমীর (আল-মাহদী তাঁকে) বলবেন: ‘(হে ঈসা ইবনে মারইয়াম আ. !) আসুন, (ইমাম হয়ে) আমাদেরকে নামায পড়ান’। তখন তিনি বলবেন: ‘না, নিশ্চই তোমাদের (মুসলমানদেরই) কেউ তোমাদের কতকের উপর আমীর হবে। (এটা) এই উম্মাহকে আল্লাহ’র (দেয়া বিশেষ) সম্মাননা”। [সহীহ মুসলীম- ১/১৩৭, হাদিস ১৫৬; মুসনাদে আহমদ- ৩/৩৮৪] 
 
ফায়দা: এখানে মুসলমানদের ‘আমীর’ (খলিফা/ইমাম) বলতে ইমাম মাহদী রা. উদ্দেশ্য। যেমন, যাবির রা. থেকে উত্তম সনদে বর্ণিত হয়েছে যে, রাসুলুল্লাহ ﷺ এরশাদ করেন: ينزل عيسى بن مريم ، فيقول أميرهم المهدي : تعال صل بنا ، فيقول : لا إن بعضهم أمير بعض ، تكرمة الله لهذه الأمة . أخرجه الحارث بن أبي أسامة في مسنده و قال ابن القيم في المنار المنيف في الصحيح و الضعيف: ص ١٤٧ : و هذا إسناد جيد; و أقره الشيخ العباد في رسالته في ” المهدي ” المنشورة في العدد الأول من السنة الثانية عشرة من مجلة ” الجامعة الإسلامية: ص ٣٠٤; و صححه الألباني في ” السلسلة الصحيحة: رقم ٢٢٣٦ – ‘ঈসা ইবনে মারইয়াম আ. অবতরন করবেন। তখন তাদের আমীর আল-মাহদী (তাঁকে) বলবেন: (হে ঈসা ইবনে মারইয়াম আ. !) আসুন, (ইমাম হয়ে) আমাদেরকে নামায পড়ান। তখন তিনি বলবেন: না, নিশ্চই তাদেরই কেউ তাদের কতকের উপর আমীর হবে। এটা এই উম্মাতের জন্য আল্লাহর (দেয়া) সম্মান’। [মুসনাদে হারেছ: সহিহাহ, আলবানী-৫/২৭৬ হাদিস ২২৩৬] الله اعلم بالصواب

# আবু হুরায়রাহ রা. থেকে সহিহ সনদে বর্ণিত হয়েছে, রাসুলুল্লাহ ﷺ এরশাদ করেন-  كَيْفَ أَنْتُمْ إِذَا نَزَلَ ابْنُ مَرْيَمَ فِيكُمْ وَإِمَامُكُمْ مِنْكُمْ . رواه بخاري في الصحيح, كتاب الأنبياء, باب نزول عيسى بن مريم عليهما السلام : رقم ٣٤٤٩; و مسلم في الصحيح: رقم ١٥٥ ‘তখন তোমাদের কেমন (আনন্দঘন মুহূর্ত) হবে, যখন (ঈসা) ইবনে মারইয়াম (দ্বিতীয় আসমান থেকে দুইজন ফেরেশতার কাঁধে ভর দিয়ে) তোমাদের (মুসলমানদের) মাঝে অবতরন করবেন, আর তোমাদের ইমাম হবে তোমাদের (মুসলমানদের) মধ্য থেকেই’। [সহিহ বুখারী, হাদিস ৩৪৪৯; সহিহ মুসলীম, হাদিস ১৫৫]

ফায়দা: মুসলমানদের ইমাম (আমীর) বলতে এখানে ইমাম মাহদী রা. উদ্দেশ্য, ইনশাআল্লাহ। নিম্নের হাদিসটিও এর সমর্থন করে। الله اعلم بالصواب

# হযরত আবু হুরায়রাহ রা. থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ ﷺ এরশাদ করেন- لاَ تَقُومُ السَّاعَةُ حَتَّى يَنْزِلَ الرُّومُ بِالأَعْمَاقِ أَوْ بِدَابِقَ فَيَخْرُجُ إِلَيْهِمْ جَيْشٌ مِنَ الْمَدِينَةِ مِنْ خِيَارِ أَهْلِ الأَرْضِ يَوْمَئِذٍ فَإِذَا تَصَافُّوا قَالَتِ الرُّومُ خَلُّوا بَيْنَنَا وَبَيْنَ الَّذِينَ سَبَوْا مِنَّا نُقَاتِلْهُمْ ‏.‏ فَيَقُولُ الْمُسْلِمُونَ لاَ وَاللَّهِ لاَ نُخَلِّي بَيْنَكُمْ وَبَيْنَ إِخْوَانِنَا ‏.‏ فَيُقَاتِلُونَهُمْ فَيَنْهَزِمُ ثُلُثٌ لاَ يَتُوبُ اللَّهُ عَلَيْهِمْ أَبَدًا وَيُقْتَلُ ثُلُثُهُمْ أَفْضَلُ الشُّهَدَاءِ عِنْدَ اللَّهِ وَيَفْتَتِحُ الثُّلُثُ لاَ يُفْتَنُونَ أَبَدًا فَيَفْتَتِحُونَ قُسْطُنْطِينِيَّةَ فَبَيْنَمَا هُمْ يَقْتَسِمُونَ الْغَنَائِمَ قَدْ عَلَّقُوا سُيُوفَهُمْ بِالزَّيْتُونِ إِذْ صَاحَ فِيهِمُ الشَّيْطَانُ إِنَّ الْمَسِيحَ قَدْ خَلَفَكُمْ فِي أَهْلِيكُمْ ‏.‏ فَيَخْرُجُونَ وَذَلِكَ بَاطِلٌ فَإِذَا جَاءُوا الشَّأْمَ خَرَجَ فَبَيْنَمَا هُمْ يُعِدُّونَ لِلْقِتَالِ يُسَوُّونَ الصُّفُوفَ إِذْ أُقِيمَتِ الصَّلاَةُ فَيَنْزِلُ عِيسَى ابْنُ مَرْيَمَ فَأَمَّهُمْ فَإِذَا رَآهُ عَدُوُّ اللَّهِ ذَابَ كَمَا يَذُوبُ الْمِلْحُ فِي الْمَاءِ فَلَوْ تَرَكَهُ لاَنْذَابَ حَتَّى يَهْلِكَ وَلَكِنْ يَقْتُلُهُ اللَّهُ بِيَدِهِ فَيُرِيهِمْ دَمَهُ فِي حَرْبَتِهِ – কেয়ামত সংঘটিত হবে না, যাবৎ রোম’রা আ’মাক অথবা দাবিক-এ অবতরণ না করে। সেসময় পৃথিবীবাসীর মধ্য থেকে (মুমিনদের) সর্বোত্তম একটি সৈন্যদল মদিনা হতে (বের হয়ে) তাদের দিকে ধাবিত হবে। তারা পরষ্পরে যখন সারিবদ্ধ হয়ে (মালহামাতুল কুবরা তথা মহাযুদ্ধের জন্য প্রস্তুত হবে, তখন) রোম’রা বলবে: আমাদের এবং যারা আমাদের লোকদেরকে আটকিয়ে রেখেছে তাদের মাঝ থেকে তোমরা সরে যাও, আমরা ওদের সাথে যুদ্ধ করবো। তখন মুসলমানরা বলবে: (এটা কখনই হতে পারে) না, আল্লাহ’র শপথ, আমারা তোমাদের এবং আমাদের (মুসলমান) ভাইদের মাঝ থেকে সরে দাঁড়াবো না। এরপর তাঁরা তাদের (তথা রোম বাহিনীর) সাথে যুদ্ধ করবে। তখন (যদ্ধের ভয়াবহতা দেখে মুসলমানদের মধ্যে) তিন ভাগের এক ভাগ (ভয়ে) পালিয়ে যাবে, আল্লাহ তাদের তওবা আর কখনই কবুল করবেন না। আর এক তৃতীয়াংশ শহীদ হয়ে যাবে; তাঁরা হবে আল্লাহ’র কাছে (সেই জিহাদের) সর্বোত্তম শহীদ। আর (অবশিষ্ট) এক তৃতীয়াংশ (যাঁরা বেঁচে যাবে তাঁরা ওই জিহাদে রোমদের উপর) বিজয় লাভ করবে; (পরে) তাঁরা আর কখনই ফিতনায় পতিত হবে না। এরপর তাঁরা (সামনে অগ্রসর হয়ে) কুস্তুনতুনিয়া (কন্সট্যান্টিনোপোল/ ইস্তাম্বুল, তুরষ্ক) জয় করবে। তারা যখন তাদের তরবারী জয়তুন গাছে ঝুলিয়ে গণীমতের মাল বন্টন করতে থাকবে, এমন সময় শয়তান তাদের মাঝে চিৎকার দিয়ে বলবে: নিশ্চই মাসিহ (দাজ্জাল) তোমাদের পরিবারের পিছনে লেগেছে। তখন তাঁরা (অবস্থার সত্যতা যাঁচাইয়ের জন্য) বেরিয়ে পড়বে, কিন্তু (বাস্তবে) খবরটি ছিল মিথ্যা। তাঁরা যখন শাম-এ গিয়ে পৌছবে, (তখন) দাজ্জাল বের হবে। তাঁরা জিহাদের জন্য প্রস্তুতি নিয়ে সারিবদ্ধ হতে হতেই (আযান ও) নামাযের আকামত দেয়া হবে। তখন ঈসা ইবনু মারইয়াম (আ.) নাজিল হবেন। এরপর (নামায আদায় করা হবে ইমাম মাহদীর ইমামতীতে এবং নামাযের পর দাজ্জালের মুকাবেলায় মুসলীম উম্মাহ’র) তিনি নেতৃত্ব দিবেন। আল্লাহ’র দুশমন (দাজ্জাল) যখন তাঁকে দেখবে, তখন সে এমনভাবে গলে যাবে যেভাবে লবন পানিতে গলে যায়। তিনি যদি তাকে (ওভাবেই) ছেড়ে দিতেন, তাহলে (সে গলতে গলতে) একসময় (পুরাপুরি) ধ্বংস হয়ে যেতো। কিন্তু আল্লাহ  ঈসা আ.-এর হাত দ্বারা তাকে হত্যা করবেন। তাই (শেষ পর্যন্ত ) ঈসা আ.-এর বর্শার মধ্যে তার রক্ত তারা দেখতে পাবে। [সহিহ মুসলীম ২৮৯৭]

ফায়দা: এই হাদিসে ‘মদিনা’ বলতে মদিনা মুনাওয়ারাও  হতে পারে, আবার অনেকের মতে সিরিয়ার দামেশক শহরও উদ্দেশ্য হতে পারে। এখানে রোম’রা যাদের সাথে যুদ্ধ করবে মর্মে এই হাদিসে ইংগিত রয়েছে তাঁরা হলে ইমাম মাহদী রা. ও তাঁর মুমিন মুজাহিদগণ। নবী করিম ﷺ এখানে ‘রোম’ বলতে তাঁর সময়কার যে সকল খৃষ্টান ধর্মাবলম্বী পরাশক্তিরা ‘রোম/বনু আসফার’ বলে পরিচিত ছিল, তাদের উত্তরসূরীদের মধ্যে যারা ইমাম মাহদী রা.-এর বিরুদ্ধে যুদ্ধে লিপ্ত হবে তাদেরকে বোঝানো হয়েছে। الله اعلم بالصواب

# আবু হুরায়রাহ রা. থেকে বর্ণিত হয়েছে, রাসুলুল্লাহ ﷺ এরশাদ করেন-وَ الَّذِي نَفْسِي بِيَدِهِ لَيُوشِكَنَّ أَنْ يَنْزِلَ فِيكُمُ ابْنُ مَرْيَمَ حَكَماً مُقْسِطاً، فَيَكْسِرُ الصَّلِيبَ، وَيَقْتُلُ الْخِنْزِيرَ، وَيَضَعُ الْجِزْيَةَ، وَيَفِيضُ الْمَالُ حَتَّى لاَ يَقْبَلَهُ أَحَدٌ . أخرجه مسلم في الصحيح , كتاب الإيمان , باب نُزُولِ عِيسَى ابْنِ مَرْيَمَ حَاكِمًا بِشَرِيعَةِ نَبِيِّنَا مُحَمَّدٍ صلى الله عليه وسلم: رقم ١٥٥، و أخرجه البخاري , كتاب البيوع , باب قتل الخنزير : رقم ٢٢٢٢، و الترمذي في سننه , كتاب الفتن , باب ما جاء في نزول عيسى بن مريم عليه السلام : رقم ٢٢٣٣ – “ওই সত্ত্বার কসম, যাঁর হাতে আমার জীবন, নিশ্চই অচিরেই তোমাদের (শেষ জামানার মুসলমানদের) মাঝে ঈসা ইবনে মারইয়াম নাজিল হবেন (একজন) ইনসাফগার হাকাম (শাসক ও বিচারক) হিসেবে। তিনি (আল্লাহ’র হুকুমে) ক্রসকে ভেঙ্গে ফেলবেন, শুয়োরকে হত্যা করবেন, (তাঁর শাসনাধীন রাজ্যে অধিনস্ত সকল মানুষ মুসলমান হওয়ার কারণে তিনি) জিজিয়া (ব্যবস্থাপনা) অকার্যকর করে দিবেন এবং (সে সময় মানুষের) প্রচর ধ্বনসম্পদ হবে, এমনকি তা গ্রহন করার (মতো ফকির মিসকীন) কেউ থাকবে না”। [সহিহ মুসলীম, হাদিস ১৫৫; সহিহ বুখারী, হাদিস ২২২২; সুনানে তিরমিযী, হাদিস ২২৩৩; মুসনাদে আবু আউয়ানাহ– ১/৮০ হাদিস ২৩০; আল-ইমান, ইবনু মানদাহ- ১/৫১৩ হাদিস ৪০৮; তারিখে দামেশক, ইবনুল আসাকীর- ৪৭/৪৯০]

ফায়দা: রাসুলুল্লাহ ﷺ হলেন আল্লাহ তাআলার সর্বশেষ নবী এবং তাঁর উপরে নাজিলকৃত শরীয়তই হল সর্বশেষ শরীয়ত, যা কেয়ামত পর্যন্ত সময়ের জন্য প্রযোজ্য। আর ঈসা ইবনে মারইয়াম আ. শেষ জামানায় দ্বিতীয়বারের জন্য আসবেন রাসুলুল্লাহ ﷺ-এর উম্মত হিসেবে এবং তিঁনি পৃথিবী শাসন করবেন কুরআন সুন্নাহ ভিত্তিক শরীয়াহ মোতাবেক। [শারহুল মুসলীম, নববী- ২/৩৬৬]

বিভিন্ন হাদিস থেকে বোঝা যায়, শেষ জামানায় দাজ্জালের মৃত্যুর পর ইমাম মাহদী রা. কিছু কাল বেঁচে থেকে তারপর এই দুনিয়া থেকে চির বিদায় নিবেন। তারপর ঈসা আ. এরপরও বেশ কিছু বছর (চল্লিশ বছর) বেঁচে থাকবেন এবং পৃথিবী শাসন করবেন। তাঁর শাসন আমলে গোটা পৃথিবীতে সকল আহলে কিতাব কাফেররা ইসলাম কবুল করে নিবে। উপরের মূল হাদিসটির অংশ হিসেবে বুখারীর অন্য এক রেওয়ায়েতে আছে, আবু হুরায়রাহ রা. বলেছেন- وَاقْرَءُوا إِنْ شِئْتُمْ ‏- ‏وَإِنْ مِنْ أَهْلِ الْكِتَابِ إِلاَّ لَيُؤْمِنَنَّ بِهِ قَبْلَ مَوْتِهِ وَيَوْمَ الْقِيَامَةِ يَكُونُ عَلَيْهِمْ شَهِيدًا‏ ‏.‏ رواه البخاري في الصحيح , كتاب أحاديث الأنبياء , باب نُزُولُ عِيسَى ابْنِ مَرْيَمَ عليهما السلام : رقم ٣٤٤٨ – “তোমরা চাইলে (এর সমর্থনে এই আয়াতটি) পড়তে পারো- ‏وَإِنْ مِنْ أَهْلِ الْكِتَابِ إِلاَّ لَيُؤْمِنَنَّ بِهِ قَبْلَ مَوْتِهِ وَيَوْمَ الْقِيَامَةِ يَكُونُ عَلَيْهِمْ شَهِيدًا‏ – ‘আহলে কিতাবের মধ্যে (যারা সে সময় থাকবে), তারা অবশ্যই তাঁর (তথা ঈসা ইবনে মারইয়ামের) মৃত্যুর পূর্বে তাঁর উপরে ইমান আনবে এবং কেয়ামতের দিন সেঁ তাদের উপরে সাক্ষ্যি হবে”। [সহিহ বুখারী, হাদিস ৩৪৪৮] এটি সুরা নিসার ১৫৮ নং আয়াত, যার তাফসিরে ইমাম হাসান বসরী, ইবনে যায়েদ, আবু মালেক প্রমুখ থেকে বর্ণিত হয়েছে যে, সে সময় সকল আহলে কিতাব ঈসা আ.-এর উপরে ইমান এনে মুসলীম হয়ে যাবে। [তাফসিরে তাবারী, ইবনে জারির -৭/৬৬৪]

আর এই হাদিসে যে বলা হয়েছে যে, ঈসা আ. يَضَعُ الْجِزْيَةَ – ‘জিজিয়া (ব্যবস্থাপনা) অকার্যকর করে দিবেন’ -এর অর্থ রাসুলুল্লাহ ﷺ-এর শরীয়তের জিজিয়া সিস্টেমকেই মানসুখ (রজিত) করে গোড়া থেকে বিলুপ্ত করা নয়। বরং ঈসা আ.-এর শাসনের জামানায় আহলে-কিতাবের সকলে মুসলমান হয়ে যাবে, ফলে তাঁর রাজ্যে কারোর উপরে জিজিয়া কার্যকর করার দরকারই হবে না। ফলে কুরআন সুন্না’য় জিজিয়া আইনগুলি বহাল তবিয়তে থাকলেও তা বাস্তবে অকার্যকর অবস্থায় রয়ে যাবে। [শারহুল মুসলীম, নববী- ২/৩৬৭; উমদাতুল কারী, আইনী- ১৮/১৫০]   الله اعلم بالصواب

# আবু হুরায়রাহ রা. থেকে বর্ণিত হয়েছে, রাসুলুল্লাহ ﷺ এরশাদ করেন- لَيْسَ بَيْنِي وَبَيْنَهُ نَبِيٌّ – يَعْنِي عِيسَى – وَإِنَّهُ نَازِلٌ ، فَإِذَا رَأَيْتُمُوهُ فَاعْرِفُوهُ : رَجُلٌ مَرْبُوعٌ إِلَى الْحُمْرَةِ وَالْبَيَاضِ ، بَيْنَ مُمَصَّرَتَيْنِ ، كَأَنَّ رَأْسَهُ يَقْطُرُ ، وَإِنْ لَمْ يُصِبْهُ بَلَلٌ ، فَيُقَاتِلُ النَّاسَ عَلَى الْإِسْلَامِ ، فَيَدُقُّ الصَّلِيبَ ، وَيَقْتُلُ الْخِنْزِيرَ ، وَيَضَعُ الْجِزْيَةَ ، وَيُهْلِكُ اللَّهُ فِي زَمَانِهِ الْمِلَلَ كُلَّهَا إِلَّا الْإِسْلَامَ ، وَيُهْلِكُ الْمَسِيحَ الدَّجَّالَ ، فَيَمْكُثُ فِي الْأَرْضِ أَرْبَعِينَ سَنَةً ، ثُمَّ يُتَوَفَّى فَيُصَلِّي عَلَيْهِ الْمُسْلِمُونَ . أخرجه أبو داود في سننه , كتاب الملاحم : ٤٣٢٤ ، و أحمد في مسنده : ٩٢٧٠ ، و ابن عبدالبر في التمهيد : ١٤/٢٠١ ; صححه الألباني في صحيح أبي داود – “আমার ও তাঁর -তথা ঈসা’র- মাঝে কোনো নবী নেই। এবং নিশ্চই তিঁনি (শেষ জামানায় দ্বিতীয়বারের জন্য আসমান থেকে পৃথিবীতে) অবতরন করবেন। তোমরা (মুসলমানরা) যখন তাঁকে দেখবে, তখন তাঁকে চিনতে পারবে। (তিনি হবেন একজন) মধ্যম উচ্চতার (ব্যাক্তি। তাঁর চুলের রং হবে কিছুটা) লালচে এবং (তার পড়নে থাকবে) দুটি উজ্জল হলুদ (রং-এর কাপড়)। তাঁর মাথা থেকে পানি টপকে পড়তে থাকবে -যদিও তা (পানি দ্বারা) ভিজা থাকবে না। তিঁনি (অবতরনের পর মুমিনদেরকে নিয়ে) ইসলামের জন্য (আল্লাদ্রোহি) মানুষদের বিরুদ্ধে জিহাদ করবেন। পরে তিনি (আল্লাহ’র হুকুমে) ক্রসকে ভেঙ্গে ফেলবেন, শুয়োরকে হত্যা করবেন, (তাঁর শাসনাধীন রাজ্যে অধিনস্ত সকল মানুষ মুসলমান হওয়ার কারণে তিনি) জিজিয়া (ব্যবস্থাপনা) অকার্যকর করে দিবেন। তাঁর জামানায় ইসলাম বাদে সকল মিল্লাত’কে আল্লাহ (তাআলা) ধ্বংস করে দিবেন। (তাঁর হাতেই) মাসিহ দাজ্জাল ধ্বংস হবে। তারপর তিঁনি পৃথিবীতে চল্লিশ বছর জীবিত থাকবেন। অতঃপর ইন্তেকাল করবেন। তখন মুসলমানরা তাঁর (জানাযার) নামায পড়বে”। [সুনানে আবু দাউদ, হাদিস ৪৩২৪; মুসনাদে আহমাদ, হাদিস ৯২৭০; আত-তামহীদ, ইবনু আব্দিল বার- ১৪/২০১]

# আনাস রা. থেকে বর্ণিত হয়েছে, রাসুলুল্লাহ ﷺ এরশাদ করেন- مَنْ أَدْرَكَ مِنْكُمْ عِيسَى ابْنَ مَرْيَمَ فَلْيُقْرِئْهُ مِنِّي السَّلاَمَ  . أخرجه الحاكم في المستدرك : ٤/٥٤٥ ; وحسنه الألباني في صحيح الجامع : رقم ١٩٨١ و في السلسلة الصحيحة : ٥/٣٨٩ رقم ٢٣٠٨ – “তোমাদের (মুসলমানদের) মধ্যে যে ব্যাক্তি ঈসা ইবনে মারইয়াম (আ.)-এর সাক্ষাত পাবে, সে যেন অবশ্যই আমার পক্ষ থেকে তাঁকে সালাম জানায়”। [মুসতাদরাকে হাকিম- ৪/৫৪৫]

# আবু হুরায়রাহ রা. থেকে বর্ণিত হয়েছে, তিনি এরশাদ করেন- إِنِّي لَأَرْجُو إِنْ طَالَتْ بِي حَيَاةٌ أَنْ أُدْرِكَ عِيسَى ابْنَ مَرْيَمَ، فَإِنْ عَجِلَ بِي مَوْتٌ، فَمَنْ أَدْرَكَهُ فَلْيُقْرِئْهُ مِنِّي السَّلَامَ . أخرجه أحمد في مسنده : ٨/ ٩٠ رقم ٧٩٥٨ ; قال أحمد شاكر : اسناده صحيح   – “আমার খুবই ইচ্ছে জাগে, আমার হায়াতটা যদি (এত) দীর্ঘ হত যে, আমি ঈসা ইবনে মারইয়াম (আ.)-এর সাক্ষাৎ পেয়ে যেতাম। সুতরাং, আমার মৃত্যু যদি (এর) আগেই চলে আসে, তাহলে (তোমাদের মধ্যে) যে তাঁর সাক্ষাৎ পাবে, সে যেন অবশ্যই আমার পক্ষ থেকে তাঁকে সালাম জানায়”। [মুসনাদে আহমদ– ৮/৯০ হাদিস ৭৯৫৮]

# নওয়াস বিন সামআন রা.-এর সূত্রে বর্ণিত হয়েছে, তিনি বলে-  রাসুলুল্লাহ ﷺ এরশাদ করেন-  ذَكَرَ رَسُولُ اللهِ صَلَّى اللَّهُ عليه وَسَلَّمَ الدَّجَّالَ ذَاتَ غَدَاةٍ، فَخَفَّضَ فيه وَرَفَّعَ، حتَّى ظَنَنَّاهُ في طَائِفَةِ النَّخْلِ، فَلَمَّا رُحْنَا إِلَيْهِ عَرَفَ ذلكَ فِينَا، فَقالَ: ما شَأْنُكُمْ؟ قُلْنَا: يا رَسُولَ اللهِ، ذَكَرْتَ الدَّجَّالَ غَدَاةً، فَخَفَّضْتَ فيه وَرَفَّعْتَ، حتَّى ظَنَنَّاهُ في طَائِفَةِ النَّخْلِ، فَقالَ: غَيْرُ الدَّجَّالِ أَخْوَفُنِي علَيْكُم، إنْ يَخْرُجْ وَأَنَا فِيكُمْ، فأنَا حَجِيجُهُ دُونَكُمْ، وإنْ يَخْرُجْ وَلَسْتُ فِيكُمْ، فَامْرُؤٌ حَجِيجُ نَفْسِهِ، وَاللَّهُ خَلِيفَتي علَى كُلِّ مُسْلِمٍ، إنَّه شَابٌّ قَطَطٌ، عَيْنُهُ طَافِئَةٌ، كَأَنِّي أُشَبِّهُهُ بعَبْدِ العُزَّى بنِ قَطَنٍ، فمَن أَدْرَكَهُ مِنكُمْ، فَلْيَقْرَأْ عليه فَوَاتِحَ سُورَةِ الكَهْفِ، إنَّه خَارِجٌ خَلَّةً بيْنَ الشَّأْمِ وَالْعِرَاقِ، فَعَاثَ يَمِينًا وَعَاثَ شِمَالًا، يا عِبَادَ اللهِ فَاثْبُتُوا، قُلْنَا: يا رَسُولَ اللهِ، وَما لَبْثُهُ في الأرْضِ؟ قالَ: أَرْبَعُونَ يَوْمًا، يَوْمٌ كَسَنَةٍ، وَيَوْمٌ كَشَهْرٍ، وَيَوْمٌ كَجُمُعَةٍ، وَسَائِرُ أَيَّامِهِ كَأَيَّامِكُمْ قُلْنَا: يا رَسُولَ اللهِ، فَذلكَ اليَوْمُ الذي كَسَنَةٍ، أَتَكْفِينَا فيه صَلَاةُ يَومٍ؟ قالَ: لَا، اقْدُرُوا له قَدْرَهُ، قُلْنَا: يا رَسُولَ اللهِ، وَما إِسْرَاعُهُ في الأرْضِ؟ قالَ: كَالْغَيْثِ اسْتَدْبَرَتْهُ الرِّيحُ، فَيَأْتي علَى القَوْمِ فَيَدْعُوهُمْ، فيُؤْمِنُونَ به وَيَسْتَجِيبُونَ له، فَيَأْمُرُ السَّمَاءَ فَتُمْطِرُ، وَالأرْضَ فَتُنْبِتُ، فَتَرُوحُ عليهم سَارِحَتُهُمْ، أَطْوَلَ ما كَانَتْ ذُرًا، وَأَسْبَغَهُ ضُرُوعًا، وَأَمَدَّهُ خَوَاصِرَ، ثُمَّ يَأْتي القَوْمَ، فَيَدْعُوهُمْ فَيَرُدُّونَ عليه قَوْلَهُ، فَيَنْصَرِفُ عنْهمْ، فيُصْبِحُونَ مُمْحِلِينَ ليسَ بأَيْدِيهِمْ شيءٌ مِن أَمْوَالِهِمْ، وَيَمُرُّ بالخَرِبَةِ، فيَقولُ لَهَا: أَخْرِجِي كُنُوزَكِ، فَتَتْبَعُهُ كُنُوزُهَا كَيَعَاسِيبِ النَّحْلِ، ثُمَّ يَدْعُو رَجُلًا مُمْتَلِئًا شَبَابًا، فَيَضْرِبُهُ بالسَّيْفِ فَيَقْطَعُهُ جَزْلَتَيْنِ رَمْيَةَ الغَرَضِ، ثُمَّ يَدْعُوهُ فيُقْبِلُ وَيَتَهَلَّلُ وَجْهُهُ، يَضْحَكُ، فَبيْنَما هو كَذلكَ إِذْ بَعَثَ اللَّهُ المَسِيحَ ابْنَ مَرْيَمَ، فَيَنْزِلُ عِنْدَ المَنَارَةِ البَيْضَاءِ شَرْقِيَّ دِمَشْقَ، بيْنَ مَهْرُودَتَيْنِ، وَاضِعًا كَفَّيْهِ علَى أَجْنِحَةِ مَلَكَيْنِ، إِذَا طَأْطَأَ رَأْسَهُ قَطَرَ، وإذَا رَفَعَهُ تَحَدَّرَ منه جُمَانٌ كَاللُّؤْلُؤِ، فلا يَحِلُّ لِكَافِرٍ يَجِدُ رِيحَ نَفَسِهِ إِلَّا مَاتَ، وَنَفَسُهُ يَنْتَهِي حَيْثُ يَنْتَهِي طَرْفُهُ، فَيَطْلُبُهُ حتَّى يُدْرِكَهُ ببَابِ لُدٍّ، فَيَقْتُلُهُ، ثُمَّ يَأْتي عِيسَى ابْنَ مَرْيَمَ قَوْمٌ قدْ عَصَمَهُمُ اللَّهُ منه، فَيَمْسَحُ عن وُجُوهِهِمْ وَيُحَدِّثُهُمْ بدَرَجَاتِهِمْ في الجَنَّةِ، فَبيْنَما هو كَذلكَ إِذْ أَوْحَى اللَّهُ إلى عِيسَى: إنِّي قدْ أَخْرَجْتُ عِبَادًا لِي، لا يَدَانِ لأَحَدٍ بقِتَالِهِمْ، فَحَرِّزْ عِبَادِي إلى الطُّورِ وَيَبْعَثُ اللَّهُ يَأْجُوجَ وَمَأْجُوجَ، وَهُمْ مِن كُلِّ حَدَبٍ يَنْسِلُونَ . أخرجه مسلم في الصحيح , كتاب الفتن وأشراط الساعة : رقم ٢٩٣٧ ; و الترمذي في سننه , كتاب الفتن عن رسول الله ﷺ , باب ما جاء في فتنة الدجال : رقم ٢٢٤٠ دون السؤال ، و أحمد في مسنده : رقم ١٧٦٢٩  – “রাসুলুল্লাহ ﷺ একদিন দাজ্জালের আলোচনা করলেন। তখন তিঁনি (দ্বীনের বিচারে) তার (তথা দাজ্জালের) তুচ্ছতা/হীনতার বর্ণনা দিলেন, আবার তার (ভয়ানক ফিতনার গুরুত্বও) তুলে ধরলেন। (তিনি বিষয়গুলোকে এমন জীবন্তভাবে তুলে ধরছিলেন যে,) আমাদের মনে হচ্ছিল সে খেজুর গাছের ঝোপের মধ্যে (লুকিয়ে) আছে। (এর পরে একসময় আমরা রাসুলুল্লাহ ﷺ-এর কাছ থেকে চলে যাই)। পরে যখন (সন্ধায়) তাঁর কাছে ফিরে আসি, তখন তিনি আমাদের মধ্যে সেটা বুঝতে পেরে জিজ্ঞেস করলেন: ‘কী হয়েছে তোমাদের’? আমরা বললাম: ‘ইয়া রাসুলাল্লাহ! আপনি সকালে দাজ্জালের আলোচনা করেছিলেন। তখন তার তুচ্ছতা/হীনতার বর্ণনা দিলেন, আবার তার (ভয়ানক ফিতনার গুরুত্বও এমন জীবন্তভাবে) তুলে ধরলেন (যে,) আমাদের মনে হচ্ছিল সে খেজুর গাছের ঝোপের মধ্যে (লুকিয়ে) আছে’। তিনি বললেন: ‘দাজ্জাল নয়; তোমাদের উপরে অন্য কিছু নিয়ে আমার (বেশি) ভয় হয়। আমি তোমাদের মাঝে (জীবিত) থাকতেই যদি সে বের হয়, তাহলে তোমাদের লাগবে না, আমি (নিজেই) তাকে প্রতিহত করবো। আর সে যদি আমি তোমাদের মাঝে (জীবিত) না থাকা অবস্থায় বের হয়, তাহলে প্রতিহতের বিষয়টি (প্রত্যেক মুসলমান) নিজ দায়িত্বে থাকবে এবং (সে ক্ষেত্রে) আমার স্থলে (দয়াময় করুনাময়) আল্লাহ’ই প্রত্যেক (মুমিন) মুসলমানের উপরে তত্ত্বাবধায়ক থাকবেন। (ভাল করে দাজ্জালের বৈশিষ্ট জেনে রাখো)। নিশ্চই সে একজন অধিকমাত্রার চুল ওয়ালা যুবক, তার (এক দিকের) চোখটি (কোটরের ভিতরে) নির্জীব/অসতেজ (থাকবে)। আমি -তার সাদৃশ্যতা (কার সাথে মিলে, সেই উদাহরণ) দিলে  (বলবো, সে অনেকটা) আব্দুল উযযা বিন ক্বাতানের মতো (দেখতে)। তোমাদের (মুসলমানদের) মধ্যে যে তার সাক্ষাত পাবে, সে যেন ওর সামনে সুরা কাহফের প্রথম (১০ টি আয়াত) পড়ে নেয়। সে বের হবে ইরাক এবং শামের মাঝামাঝি (একটি) সংযোগস্থল (এলাকা) থেকে। পরে সে ফ্যাসাদ/দূর্যোগ সৃষ্টি করবে ডানে ও বামে। ওহে আল্লাহ’র বান্দাগণ, তোমরা (তার ফিতনার সময়ও দ্বীনের উপরে) দৃঢ়পদে থেকো, (কোনো মতেই ইমান ছাড়বে না)’। আমরা জিজ্ঞেস করলাম: ‘ইয়া রাসুলাল্লাহ! পৃথিবীতে তার স্থায়ীত্ব কত (দিন) হবে’ ? তিনি বললেন: ‘চল্লিশ দিন (থাকবে, যার) একটি দিন হবে এক বছরের মতো (দীর্ঘ), একটি দিন হবে এক মাসের মতো (দীর্ঘ), একটি দিন হবে এক সপ্তাহের মতো (দীর্ঘ) এবং তার বাদবাকি দিনগুলো হবে তোমাদের (স্বাভাবিক) দিনগুলোর মতো’। আমরা জিজ্ঞেস করলাম: ‘ইয়া রাসুলাল্লাহ! তার যে দিনটি এক বছরের মতো (দীর্ঘ) হবে, তাতে কি আমাদের জন্য এক দিনের নামাযই যথেষ্ট হবে’? তিনি বললেন: ‘না। (বরং) তোমরা তার (তথা নামাযের) ওয়াক্ত (হিসাব করে) নির্ণয় করে নিবে (এবং ওয়াক্ত মতো নামায আদায় করবে)’। আমরা জিজ্ঞেস করলাম: ‘ইয়া রাসুলাল্লাহ! পৃথিবীতে তার ভ্রমন কী (রকম) হবে’? তিনি বললেন: ‘যেমনি ভাবে বায়ু মেঘকে হাকিয়ে নিয়ে যায়। সে একটি গোষ্ঠির কাছে এসে তাদেরকে (তার ফিতনাবাদী মত ও পথের দিকে) আহবান করবে, ফলে তারা (ফিতনায় প্ররোচিত হয়ে) তার উপরে ইমান আনবে ও তার ডাকে সাড়া দিবে। তখন সে আকাশকে (তাদের জন্য বৃষ্টি বর্ষানোর) নির্দেশ দিবে, ফলে তা বৃষ্টি বর্ষন করবে এবং সে ভূমিকে (ফলন ফলানোর নির্দেশ দিবে), ফলে তা ফলন দিবে। পরে তাদের গবাদী পশুগুলো (সন্ধায়) তাদের কাছে বাসস্থানে ফিরে আসবে সুউচ্চ কুঁজ, (দুধে ভরা) টইটুম্বুর স্তন ও ভর্তি পেট নিয়ে। এরপর সে (আরেক) গোষ্ঠির কাছে এসে তাদেরকে (তার ফিতনাবাদী মত ও পথের দিকে) আহবান করবে। কিন্তু তারা তার কথাকে প্রত্যাক্ষান করবে। পরে সে তাদের থেকে চলে যাবে। পরে তাদের সকাল হবে দুর্ভিক্ষগ্রস্থ অবস্থায়। তাদের হাতে ধ্বনসম্পদের কিছুই থাকবে না। পরে সে এক পরিত্যাক্ত স্থান দিয়ে অতিক্রম করার সময় তাকে (সম্মোধন করে) বলবে: ‘তুমি তোমার গুপ্তধ্বনকে বের করে দাও’। ফলে গুপ্তধ্বন তাকে (তেমনি ভাবে) অনুসরণ করবে, যেভাবে মৌমাছি মৌরাণীকে অনুসরণ করে। এরপর সে পূর্ণযৌবনভরা এক যুবককে আহবান করবে, তারপর তাকে তরবারী দিয়ে আঘাত করবে। ফলে সে একদম মাঝ বরাবর দিখন্ডিত হয়ে যাবে। তারপর তাকে ডাক দিবে। ফলে সে আনন্দময় চেহারায় তার কাছে আসবে (এবং) হেসে দিবে। এ (ঘটনা)টা (যখন) ঘটতে থাকবে তখন আল্লাহ (তাঁর প্রকৃত মাসিহ) ঈসা ইবনে মারইয়ামকে পাঠাবেন। তিনি এক জোড়া উজ্জল জাফরানী কাপড়ে (আবৃতাবস্থায়) দুজন ফেরেশতার ডানার উপরে হাত রেখে দামেশকের পূর্ব সাদা মিনারের কাছে অবতরন করবেন। তিনি যখন তাঁর মাথা ঝুঁকাবেন, তখন (তাঁর মাথার চুল থেকে পানির) ফোটা টপকে টপকে পড়বে। আর তিনি যখন মাথা উঠাবেন, তখন মুক্তার দানার মতো (পানিফোটার) বিন্দুদানা ঝড়ে পড়বে। তাঁর নিঃশ্বাসের বাতাস গিয়ে যে কাফেরকে লাগবে সে না মড়ে রক্ষা পারবে না। তাঁর দৃষ্টি যতদূর পর্যন্ত যাবে, তাঁর নি:শ্বাসও ততদূর পর্যন্ত গিয়ে পৌছবে। তিঁনি তার (তথা দাজ্জালের) সন্ধানে রত থাকবেন যাবত না (ফিলিস্তিনের) বাবে-লূদে (গিয়ে) তার সাক্ষাৎ পান। পরে তিঁনি তাকে (সেখানে) হত্যা করবেন। এরপর ঈসা ইবনে মারইয়াম (আ.) ওই গোষ্ঠির কাছে আসবেন, যাদেরকে (তাদের ইমানী অবিচলতার কারণে) আল্লাহ ওর (তথা দাজ্জালের ফিতনা) থেকে বাঁচিয়ে রেখেছিলেন। পরে তিঁনি তাদের মুখগুলিতে (বরকতময়) হাত বুলিয়ে দিবেন এবং তাদেরকে জান্নাতে তাদের মর্তবাস্তরের কথা জানাবেন। এসব হতে থাকবে, এমন সময় ঈসা (আ.)-এর কাছে আল্লাহ (এই) ওহী পাঠাবেন (যে), আমি আমার (এমন সব) বান্দাদেরকে (আজ) বের হতে দিয়েছি, যাদের সাথে যুদ্ধ করার ক্ষমতা কারোরই নেই। তাই আমার বান্দাদেরকে নিয়ে তূর (পাহড়)-এ আশ্রয় গ্রহন করো। আল্লাহ (এরপর তাঁর ওয়াদা অনুসারে) ইয়াজুজ মাজুজ’ (গোষ্ঠি)কে প্রেরন করবেন এবং তারা প্রত্যেক উঁচু স্থান থেকে বেড়িয়ে ধেয়ে আসবে”। [সহিহ মুসলীম, হাদিস ২৯৩৭; সুনানে তিরমিযী, হাদিস ২২৪০; মুসনাদে আহমদ, হাদিস ১৭৬২৯; মুসতাদরাকে হাকিম– ৪/৬৬১ হাদিস ৮৫৭৩; আল-ইমান, ইমাম ইবনু মানদাহ- ২/৯৩৩ হাদিস ১০২৭]

# যাবের বিন আব্দুল্লাহ রা. থেকে বর্ণিত,  রাসুলুল্লাহ ﷺ এরশাদ করেন- َ يَخْرُجُ الدَّجَّالُ فِي خَفْقَةٍ مِنَ الدِّينِ ، وَإِدْبَارٍ مِنَ الْعِلْمِ ، فَلَهُ أَرْبَعُونَ لَيْلَةً يَسِيحُهَا فِي الْأَرْضِ ، الْيَوْمُ مِنْهَا كَالسَّنَةِ ، وَالْيَوْمُ مِنْهَا كَالشَّهْرِ ، وَالْيَوْمُ مِنْهَا كَالْجُمُعَةِ ، ثُمَّ سَائِرُ أَيَّامِهِ كَأَيَّامِكُمْ هَذِهِ ، وَلَهُ حِمَارٌ يَرْكَبُهُ ، عَرْضُ مَا بَيْنَ أُذُنَيْهِ أَرْبَعُونَ ذِرَاعًا . فَيَقُولُ لِلنَّاسِ : أَنَا رَبُّكُمْ . وَهُوَ أَعْوَرُ ، وَإِنَّ رَبَّكُمْ لَيْسَ بِأَعْوَرَ ، مَكْتُوبٌ بَيْنَ عَيْنَيْهِ كَافِرٌ ك ف ر مُهَجَّاةٌ يَقْرَؤُهُ كُلُّ مُؤْمِنٍ ، كَاتِبٌ وَغَيْرُ كَاتِبٍ ، يَرِدُ كُلَّ مَاءٍ وَمَنْهَلٍ ، إِلَّا الْمَدِينَةَ وَمَكَّةَ حَرَّمَهُمَا اللَّهُ عَلَيْهِ ، وَقَامَتْ الْمَلَائِكَةُ بِأَبْوَابِهَا ، وَمَعَهُ جِبَالٌ مِنْ خُبْزٍ ، وَالنَّاسُ فِي جَهْدٍ إِلَّا مَنْ تَبِعَهُ ، وَمَعَهُ نَهْرَانِ أَنَا أَعْلَمُ بِهِمَا مِنْهُ نَهَرٌ يَقُولُ : الْجَنَّةُ ، وَنَهَرٌ يَقُولُ : النَّارُ ، فَمَنْ أُدْخِلَ الَّذِي يُسَمِّيهِ الْجَنَّةَ فَهُوَ النَّارُ ، وَمَنْ أُدْخِلَ الَّذِي يُسَمِّيهِ النَّارَ فَهُوَ الْجَنَّةُ ، قَالَ : وَيَبْعَثُ اللَّهُ مَعَهُ شَيَاطِينَ تُكَلِّمُ النَّاسَ ، وَمَعَهُ فِتْنَةٌ عَظِيمَةٌ ، يَأْمُرُ السَّمَاءَ فَتُمْطِرُ فِيمَا يَرَى النَّاسُ ، وَيَقْتُلُ نَفْسًا ثُمَّ يُحْيِيهَا فِيمَا يَرَى النَّاسُ ، لَا يُسَلَّطُ عَلَى غَيْرِهَا مِنَ النَّاسِ ، وَيَقُولُ : أَيُّهَا النَّاسُ ، هَلْ يَفْعَلُ مِثْلَ هَذَا إِلَّا الرَّبُّ ؟ ، قَالَ : فَيَفِرُّ الْمُسْلِمُونَ إِلَى جَبَلِ الدُّخَانِ بِالشَّامِ ، فَيَأْتِيهِمْ فَيُحَاصِرُهُمْ ، فَيَشْتَدُّ حِصَارُهُمْ ، وَيُجْهِدُهُمْ جَهْدًا شَدِيدًا ، ثُمَّ يَنْزِلُ عِيسَى ابْنُ مَرْيَمَ فَيُنَادِي مِنَ السَّحَرِ ، فَيَقُولُ : يَا أَيُّهَا النَّاسُ ، مَا يَمْنَعُكُمْ أَنْ تَخْرُجُوا إِلَى الْكَذَّابِ الْخَبِيثِ ؟ ، فَيَقُولُونَ : هَذَا رَجُلٌ جِنِّيٌّ ، فَيَنْطَلِقُونَ ، فَإِذَا هُمْ بِعِيسَى ابْنِ مَرْيَمَ ، فَتُقَامُ الصَّلَاةُ ، فَيُقَالُ لَهُ : تَقَدَّمْ يَا رُوحَ اللَّهِ ، فَيَقُولُ : لِيَتَقَدَّمْ إِمَامُكُمْ فَلْيُصَلِّ بِكُمْ ، فَإِذَا صَلَّى صَلَاةَ الصُّبْحِ ، خَرَجُوا إِلَيْهِ ، قَالَ : فَحِينَ يَرَى الْكَذَّابُ ، يَنْمَاثُ كَمَا يَنْمَاثُ الْمِلْحُ فِي الْمَاءِ ، فَيَمْشِي إِلَيْهِ فَيَقْتُلُهُ ، حَتَّى إِنَّ الشَّجَرَةَ ، وَالْحَجَرَ يُنَادِي : يَا رُوحَ اللَّهِ ، هَذَا يَهُودِيٌّ ، فَلَا يَتْرُكُ مِمَّنْ كَانَ يَتْبَعُهُ أَحَدًا إِلَّا قَتَلَهُ . رواه احمد في المسند :  ٣/٣٦٧ , و قال الشيخ شعيب الأرناؤوط: إسناده صحيح  – ‘দাজ্জাল বেড় হবে দ্বীনের খলৎমলৎ অবস্থায় এবং (কুরআন সুন্নাহ’র) ইলম থেকে (উম্মাহ’র পাইকারী হারে লেজগুটিয়ে) পিছুটান কালে। (মানুষকে ফিতনায় ফেলার জন্য) তার (হাতে) থাকবে চল্লিশ রাত; (যে সময়টিতে) সে পৃথিবীতে ছুটে বেড়াবে। (ওই চল্লিশ দিনের মধ্যে) একটি দিন হবে (এমন, যার দৈর্ঘ হবে) এক বৎসরের মতো, একটি দিন হবে (এমন, যার দৈর্ঘ হবে) এক মাসের মতো, একটি দিন হবে (এমন, যার দৈর্ঘ হবে) এক সপ্তাহের মতো। অতঃপর তার (বাকি) দিনগুলোর সবটাই হবে তোমাদের এই (দুনিয়ার স্বাভাবিক) দিনগুলোর মতো। তার থাকবে গাধা, যার উপরে সে আরোহন করবে। তার (গাধার) দুই কানের মধ্যবর্তী দূরুত্ব হবে চল্লিশ হাত। সে(ই দাজ্জাল) মানুষকে বলবে: ‘আমি তোমাদের রব (প্রভু)’। সে হবে (এক-চোখ) অন্ধ (এক ব্যাক্তি), আর নিশ্চই তোমাদের (প্রকৃত) রব (আল্লাহ তাআলা) অন্ধ নন। (সুতরাং, তোমরা ওর ফেতনায় পড়ে ওকে চিনতে ভুল করো না যেন)। ওর দুই চোখের মাঝখানে (কপালের কাছে) লিখা থাকবে কাফের ‘ ك ف ر’ -(এরকম) অক্ষরে, যা সকল মুমিন পড়তে পারবে -(চাই সে) লিখাপড়া জানুক কিংবা নিরক্ষর হোক। সে মদিনা ও মক্কা ছাড়া (পৃথিবীর) সকল পানি ও ঝরনার (স্থানে) যেতে পারবে; (কারণ) ওই দুই(স্থানে প্রবেশ করা)কে আল্লাহ ওর উপরে হারাম করে দিয়েছেন। উহার বিভিন্ন প্রবেশ পথে ফেরেশতারা দাঁড়িয়ে থাকবে। ওর সাথে থাকবে রুটির পাহাড়। যে ব্যাক্তি তার অনুসরণ করবে সে ছাড়া (বাকি) মানুষ কষ্টেক্লেশে পড়ে যাবে। ওর সাথে থাকবে দুটি নহর (প্রস্রবন/নদী/নালা)। আমি ওই দুটি সম্পর্কে ভাল করে জানি। সে ওর একটি নহরকে বলবে ‘জান্নাত’ এবং একটি নহরকে বলবে ‘দোযখ’। সে সেটিকে ‘জান্নাত’ নাম দিয়ে যাকে তাতে ঢুকাবে সেটা হবে দোযখ এবং সে ‘দোযখ’ নাম দিয়ে যাকে তাতে ঢুকাবে সেটা হবে জান্নাত। আল্লাহ তার সাথে শয়তানদেরকে পাঠাবেন, তারা মানুষের সাথে কথা বলবে। তার সাথে থাকবে বিশাল ফিতনা। সে আকাশকে নির্দেশ দিবে, তখন বৃষ্টি হবে, যা মানুষজন দেখতে পাবে। সে (এক যুবক) ব্যাক্তিকে হত্যা করবে, অতঃপর (আবার) তাকে জীবিত করবে, যা মানুষজন দেখতে পাবে। সে(ই যুবকের পরে সে) ছাড়া আর কোনো (মুমিন) মানুষের উপর তার কর্তৃত্ব চলবে না। সে(ই দাজ্জাল তথাকার লোকজনকে উদ্দেশ্য করে) বলবে: ‘হে লোক সকল! (তোমাদের) রব (প্রভু) ছাড়া আর কেউ কি এমন কাজ করতে পারে’? তখন মুসলমানরা (তার থেকে) পালিয়ে শাম-এর ধুঁয়োর পাহাড়ের দিকে যাবে। তখন সে তাদের কাছে গিয়ে তাদেরকে অবরোধ করে রাখবে। পরে সে তাদের (প্রতি ওই) অবরোধকে সুকঠিন করে তুলবে (যাতে তারা ওর অনুসরন করতে বাধ্য হয়)। এতে তারা চরম কষ্টক্লেশে পড়ে যাবে। এরপর (এক সময় আসমান থেকে) ঈসা ইবনে মারইয়াম (আ.) নাজিল হবেন। তারপর তিনি এক জাদুময়ী ডাক দিবেন। তারপর তিনি বলবেন: ‘হে লোক সকল! (এই) খবিস মিথ্যুকের দিকে (যদ্ধের জন্য) বেরিয়ে পড়তে কী তোমাদেরকে বাঁধা দিয়ে রেখেছে’? তারা বলবে: ‘এই লোকটি জ্বীন্নী (জ্বীন দ্বারা সাহায্যপ্রাপ্ত)। (যখন মুসলমানরা বুঝবে যে, ঈসা ইবনে মারইয়াম আ.-এর মাধ্যমে আল্লাহ’র সাহায্য এসে গেছে) তখন তারা (দাজ্জাল ও তার বাহীনির দিকে যুদ্ধের জন্য) এগুতে থাকবে। ঈসা ইবনে মারইয়াম (আ.) তাদের সাথে থাকাবস্থাতেই নামাযের (সময় হয়ে গেলে নামাযের জামাআতের) ইকামত দেয়া হবে। তাঁকে বলা হবে: ‘ইয়া রুহাল্লাহ ! আপনি (নামাযের ইমামতীর জন্য) এগিয়ে যান’। (কিন্তু) তখন তিঁনি তোমাদের (মুসলমানদের আমীর ও) ইমামকেই (নামাযের ইমামতীর জন্য) অগ্রসর হতে বলবেন। তখন (তোমাদের ইমাম, আল-মাহদী) নামায পড়াবেন। যখন ফজরের নামায পড়া হবে, তখন তারা (মোকাবেলার উদ্দেশ্যে সকলে মিলে) ওর দিকে অগ্রসব হবে। মিথ্যুক (খবীস দাজ্জাল) যখন (ঈসা ইবনে মারইয়াম আ.-কে) দেখবে, তখন -লবন যেভাবে পানিতে গলে যায়, সেও (তেমনি ভাবে) গলে যেতে থাকবে। পরে তিঁনি ওর দিকে ধাওয়া করে ওকে (বাবে-লুদ নামক স্থানে পাকড়াও করে) হত্যা করে ফেলবেন। অবশেষে গাছগাছালী এবং সমুদ্র পর্যন্ত (এই বলে) চিৎকার দিবে: ‘ইয়া রুহাল্লাহ ! এই যে (এখানে) ইহূদী’! পরে (ইহূদীদের মধ্যে) এমন কেউ অবশিষ্ট থাকবে না, যে তাঁর অনুগত্য ইত্তেবা-অনুসরণ করবে না, আর তিঁনি তাকে হত্যা না করবেন”। [মুসনাদে আহমদ- ৩/৩৬৭; শারহু মুশকিলিল আছার, ত্বাহাবী, হাদিস ৫৬৯৪; আত-তাউহীদ, ইবনে খুযাইমাহ- ১/১০২; মুসতাদরাকে হাকিম- ৩/৫৩০]

# সামুরাহ বিন যুনদুব রা.-এর সূত্রে বর্ণিত হয়েছে, রাসুলুল্লাহ ﷺ এরশাদ করেন- ان الدجال خارج ، وهو اعور العين الشمال عليها ظفرة غليظة ،وانه يبرئ الاكمه والابرص ، ويحى الموتى ، ويقول للناس انا ربكم فمن قال :انت ربى فقد فتن ومن قال : ربى الله حتى يموت فقد عصم من فتنته ولا فتنه بعده عليه ول عذاب فليلبث فى الارض ماشاء الله ، ثم يجئ عيسى ابن مريم من قبل المغرب مصدقا بمحمد صلى الله عليه وسلم وعلى ملته فيقتل الدجال ، ثم انما هو قيام الساعه . أخرج أحمد في مسنده : ١٥/١٣٧ رقم ٢٠٠٢٧ اسناده صحيح، أخرجه المقدسى ايضا فى أخبار الدجال والقرطبى فى الاستذكار, و إسناده حسن صحيح ، ففيه عبد الوارث بن سفيان وهو صدوق حسن الحديث  – “নিশ্চই দাজ্জাল বের হবেই। আর সে ডান চোখ অন্ধ (এক ব্যাক্তি)। ও(র ওই চোখ)টির উপরে রয়েছে বড় মোটা সাদা চামড়াখন্ড। আর নিশ্চই সে (বাহ্যত: অনেকের) চোখের দৃষ্টিহীনতা ও কুষ্ঠ রোগ দূর করে দিবে, মৃতকে জীবিত করবে এবং মানুষজনকে বলবে: ‘আমি তোমাদের রব (প্রতিপালক প্রভু)’। সুতরাং, যে বলবে: ‘তুমি আমার রব (প্রতিপালক প্রভু), সে (ওর ফিতনায়) ফিতনাগ্রস্ত হবে। আর যে বলবে: ‘আমার রব (প্রতিপালক প্রভু) আল্লাহ, এমনকি (এই ইমানের উপরেই) সে মড়ে যাবে, মূলত: সে-ই ওর ফিতনা থেকে মুক্তি পাবে। এরপর আর তার উপরে ওর না (কোনো) ফিতনা আর না কোনো আযাব (প্রভাব ফেলতে পারবে)। পরে আল্লাহ (যতদিন) চাইবেন, সে পৃথিবীতে থাকবে। অত:পর ঈসা ইবনে মারইয়াম আসবেন পশ্চিম দিকে থেকে -মুহাম্মাদ ﷺ ও তাঁর মিল্লাতের সত্যায়ন সহকারে। তারপর তিঁনি দাজ্জালকে হত্যা করবেন। এরপর (এক সময়) কেয়ামত কাফেম হবে”। [মুসনাদে আহমদ– ১৫/১৩৭ হাদিস ২০০২৫; আল-মু’জামুল কাবীর, তাবরাণী- ৭/২৬৭; আত-তামহীদ, ইবনু আব্দিল বার- ৫/৪৩৫, ১৪/১৯৩; তারিখে দামেশক, ইবনুল আসাকীর- ১/৪১৫] 

# আবু উমামাহ বাহেলী রা. থেকে বর্ণিত, তিনি এরশাদ করেন- َخَطَبَنَا رَسُولُ اللَّهِ ـ صلى الله عليه وسلم ـ فَكَانَ أَكْثَرُ خُطْبَتِهِ حَدِيثًا حَدَّثَنَاهُ عَنِ الدَّجَّالِ وَحَذَّرَنَاهُ فَكَانَ مِنْ قَوْلِهِ أَنْ قَالَ ‏”‏ إِنَّهُ لَمْ تَكُنْ فِتْنَةٌ فِي الأَرْضِ مُنْذُ ذَرَأَ اللَّهُ ذُرِّيَّةَ آدَمَ أَعْظَمَ مِنْ فِتْنَةِ الدَّجَّالِ وَإِنَّ اللَّهَ لَمْ يَبْعَثْ نَبِيًّا إِلاَّ حَذَّرَ أُمَّتَهُ الدَّجَّالَ وَأَنَا آخِرُ الأَنْبِيَاءِ وَأَنْتُمْ آخِرُ الأُمَمِ وَهُوَ خَارِجٌ فِيكُمْ لاَ مَحَالَةَ وَإِنْ يَخْرُجْ وَأَنَا بَيْنَ ظَهْرَانَيْكُمْ فَأَنَا حَجِيجٌ لِكُلِّ مُسْلِمٍ وَإِنْ يَخْرُجْ مِنْ بَعْدِي فَكُلُّ امْرِئٍ حَجِيجُ نَفْسِهِ وَاللَّهُ خَلِيفَتِي عَلَى كُلِّ مُسْلِمٍ وَإِنَّهُ يَخْرُجُ مِنْ خَلَّةٍ بَيْنَ الشَّامِ وَالْعِرَاقِ فَيَعِيثُ يَمِينًا وَيَعِيثُ شِمَالاً ‏.‏ يَا عِبَادَ اللَّهِ أَيُّهَا النَّاسُ فَاثْبُتُوا فَإِنِّي سَأَصِفُهُ لَكُمْ صِفَةً لَمْ يَصِفْهَا إِيَّاهُ نَبِيٌّ قَبْلِي إِنَّهُ يَبْدَأُ فَيَقُولُ أَنَا نَبِيٌّ وَلاَ نَبِيَّ بَعْدِي ثُمَّ يُثَنِّي فَيَقُولُ أَنَا رَبُّكُمْ ‏.‏ وَلاَ تَرَوْنَ رَبَّكُمْ حَتَّى تَمُوتُوا وَإِنَّهُ أَعْوَرُ وَإِنَّ رَبَّكُمْ لَيْسَ بِأَعْوَرَ وَإِنَّهُ مَكْتُوبٌ بَيْنَ عَيْنَيْهِ كَافِرٌ يَقْرَؤُهُ كُلُّ مُؤْمِنٍ كَاتِبٍ أَوْ غَيْرِ كَاتِبٍ وَإِنَّ مِنْ فِتْنَتِهِ أَنَّ مَعَهُ جَنَّةً وَنَارًا فَنَارُهُ جَنَّةٌ وَجَنَّتُهُ نَارٌ فَمَنِ ابْتُلِيَ بِنَارِهِ فَلْيَسْتَغِثْ بِاللَّهِ وَلْيَقْرَأْ فَوَاتِحَ الْكَهْفِ فَتَكُونَ عَلَيْهِ بَرْدًا وَسَلاَمًا كَمَا كَانَتِ النَّارُ عَلَى إِبْرَاهِيمَ وَإِنَّ مِنْ فِتْنَتِهِ أَنْ يَقُولَ لأَعْرَابِيٍّ أَرَأَيْتَ إِنْ بَعَثْتُ لَكَ أَبَاكَ وَأُمَّكَ أَتَشْهَدُ أَنِّي رَبُّكَ فَيَقُولُ نَعَمْ ‏.‏ فَيَتَمَثَّلُ لَهُ شَيْطَانَانِ فِي صُورَةِ أَبِيهِ وَأُمِّهِ فَيَقُولاَنِ يَا بُنَىَّ اتَّبِعْهُ فَإِنَّهُ رَبُّكَ ‏.‏ وَإِنَّ مِنْ فِتْنَتِهِ أَنْ يُسَلَّطَ عَلَى نَفْسٍ وَاحِدَةٍ فَيَقْتُلَهَا وَيَنْشُرَهَا بِالْمِنْشَارِ حَتَّى يُلْقَى شِقَّتَيْنِ ثُمَّ يَقُولُ انْظُرُوا إِلَى عَبْدِي هَذَا فَإِنِّي أَبْعَثُهُ الآنَ ثُمَّ يَزْعُمُ أَنَّ لَهُ رَبًّا غَيْرِي ‏.‏ فَيَبْعَثُهُ اللَّهُ وَيَقُولُ لَهُ الْخَبِيثُ مَنْ رَبُّكَ فَيَقُولُ رَبِّيَ اللَّهُ وَأَنْتَ عَدُوُّ اللَّهِ أَنْتَ الدَّجَّالُ وَاللَّهِ مَا كُنْتُ بَعْدُ أَشَدَّ بَصِيرَةً بِكَ مِنِّي الْيَوْمَ ‏‏ ‏.‏ قَالَ أَبُو الْحَسَنِ الطَّنَافِسِيُّ فَحَدَّثَنَا الْمُحَارِبِيُّ حَدَّثَنَا عُبَيْدُ اللَّهِ بْنُ الْوَلِيدِ الْوَصَّافِيُّ عَنْ عَطِيَّةَ عَنْ أَبِي سَعِيدٍ قَالَ قَالَ رَسُولُ اللَّهِ ـ صلى الله عليه وسلم ـ ‏”‏ ذَلِكَ الرَّجُلُ أَرْفَعُ أُمَّتِي دَرَجَةً فِي الْجَنَّةِ ‏”‏ ‏.‏ قَالَ قَالَ أَبُو سَعِيدٍ وَاللَّهِ مَا كُنَّا نُرَى ذَلِكَ الرَّجُلَ إِلاَّ عُمَرَ بْنَ الْخَطَّابِ حَتَّى مَضَى لِسَبِيلِهِ ‏.‏ قَالَ الْمُحَارِبِيُّ ثُمَّ رَجَعْنَا إِلَى حَدِيثِ أَبِي رَافِعٍ قَالَ ‏”‏ وَإِنَّ مِنْ فِتْنَتِهِ أَنْ يَأْمُرَ السَّمَاءَ أَنْ تُمْطِرَ فَتُمْطِرَ وَيَأْمُرَ الأَرْضَ أَنْ تُنْبِتَ فَتُنْبِتَ وَإِنَّ مِنْ فِتْنَتِهِ أَنْ يَمُرَّ بِالْحَىِّ فَيُكَذِّبُونَهُ فَلاَ تَبْقَى لَهُمْ سَائِمَةٌ إِلاَّ هَلَكَتْ وَإِنَّ مِنْ فِتْنَتِهِ أَنْ يَمُرَّ بِالْحَىِّ فَيُصَدِّقُونَهُ فَيَأْمُرَ السَّمَاءَ أَنْ تُمْطِرَ فَتُمْطِرَ وَيَأْمُرَ الأَرْضَ أَنْ تُنْبِتَ فَتُنْبِتَ حَتَّى تَرُوحَ مَوَاشِيهِمْ مِنْ يَوْمِهِمْ ذَلِكَ أَسْمَنَ مَا كَانَتْ وَأَعْظَمَهُ وَأَمَدَّهُ خَوَاصِرَ وَأَدَرَّهُ ضُرُوعًا وَإِنَّهُ لاَ يَبْقَى شَىْءٌ مِنَ الأَرْضِ إِلاَّ وَطِئَهُ وَظَهَرَ عَلَيْهِ إِلاَّ مَكَّةَ وَالْمَدِينَةَ لاَ يَأْتِيهِمَا مِنْ نَقْبٍ مِنْ نِقَابِهِمَا إِلاَّ لَقِيَتْهُ الْمَلاَئِكَةُ بِالسُّيُوفِ صَلْتَةً حَتَّى يَنْزِلَ عِنْدَ الظُّرَيْبِ الأَحْمَرِ عِنْدَ مُنْقَطَعِ السَّبَخَةِ فَتَرْجُفُ الْمَدِينَةُ بِأَهْلِهَا ثَلاَثَ رَجَفَاتٍ فَلاَ يَبْقَى مُنَافِقٌ وَلاَ مُنَافِقَةٌ إِلاَّ خَرَجَ إِلَيْهِ فَتَنْفِي الْخَبَثَ مِنْهَا كَمَا يَنْفِي الْكِيرُ خَبَثَ الْحَدِيدِ وَيُدْعَى ذَلِكَ الْيَوْمُ يَوْمَ الْخَلاَصِ ‏”‏ ‏.‏ فَقَالَتْ أُمُّ شَرِيكٍ بِنْتُ أَبِي الْعُكَرِ يَا رَسُولَ اللَّهِ فَأَيْنَ الْعَرَبُ يَوْمَئِذٍ قَالَ ‏”‏ هُمْ يَوْمَئِذٍ قَلِيلٌ وَجُلُّهُمْ بِبَيْتِ الْمَقْدِسِ وَإِمَامُهُمْ رَجُلٌ صَالِحٌ فَبَيْنَمَا إِمَامُهُمْ قَدْ تَقَدَّمَ يُصَلِّي بِهِمُ الصُّبْحَ إِذْ نَزَلَ عَلَيْهِمْ عِيسَى ابْنُ مَرْيَمَ الصُّبْحَ فَرَجَعَ ذَلِكَ الإِمَامُ يَنْكُصُ يَمْشِي الْقَهْقَرَى لِيَتَقَدَّمَ عِيسَى يُصَلِّي بِالنَّاسِ فَيَضَعُ عِيسَى يَدَهُ بَيْنَ كَتِفَيْهِ ثُمَّ يَقُولُ لَهُ تَقَدَّمْ فَصَلِّ فَإِنَّهَا لَكَ أُقِيمَتْ ‏.‏ فَيُصَلِّي بِهِمْ إِمَامُهُمْ فَإِذَا انْصَرَفَ قَالَ عِيسَى عَلَيْهِ السَّلاَمُ افْتَحُوا الْبَابَ ‏.‏ فَيُفْتَحُ وَوَرَاءَهُ الدَّجَّالُ مَعَهُ سَبْعُونَ أَلْفِ يَهُودِيٍّ كُلُّهُمْ ذُو سَيْفٍ مُحَلًّى وَسَاجٍ فَإِذَا نَظَرَ إِلَيْهِ الدَّجَّالُ ذَابَ كَمَا يَذُوبُ الْمِلْحُ فِي الْمَاءِ وَيَنْطَلِقُ هَارِبًا وَيَقُولُ عِيسَى عَلَيْهِ السَّلاَمُ إِنَّ لِي فِيكَ ضَرْبَةً لَنْ تَسْبِقَنِي بِهَا ‏.‏ فَيُدْرِكُهُ عِنْدَ بَابِ اللُّدِّ الشَّرْقِيِّ فَيَقْتُلُهُ فَيَهْزِمُ اللَّهُ الْيَهُودَ فَلاَ يَبْقَى شَىْءٌ مِمَّا خَلَقَ اللَّهُ يَتَوَارَى بِهِ يَهُودِيٌّ إِلاَّ أَنْطَقَ اللَّهُ ذَلِكَ الشَّىْءَ لاَ حَجَرَ وَلاَ شَجَرَ وَلاَ حَائِطَ وَلاَ دَابَّةَ – إِلاَّ الْغَرْقَدَةَ فَإِنَّهَا مِنْ شَجَرِهِمْ لاَ تَنْطِقُ – إِلاَّ قَالَ يَا عَبْدَ اللَّهِ الْمُسْلِمَ هَذَا يَهُودِيٌّ فَتَعَالَ اقْتُلْهُ ‏”‏ ‏.‏ قَالَ رَسُولُ اللَّهِ ـ صلى الله عليه وسلم ـ ‏”‏ وَإِنَّ أَيَّامَهُ أَرْبَعُونَ سَنَةً السَّنَةُ كَنِصْفِ السَّنَةِ وَالسَّنَةُ كَالشَّهْرِ وَالشَّهْرُ كَالْجُمُعَةِ وَآخِرُ أَيَّامِهِ كَالشَّرَرَةِ يُصْبِحُ أَحَدُكُمْ عَلَى بَابِ الْمَدِينَةِ فَلاَ يَبْلُغُ بَابَهَا الآخَرَ حَتَّى يُمْسِيَ ‏”‏ ‏.‏ فَقِيلَ لَهُ يَا رَسُولَ اللَّهِ كَيْفَ نُصَلِّي فِي تِلْكَ الأَيَّامِ الْقِصَارِ قَالَ ‏”‏ تَقْدُرُونَ فِيهَا الصَّلاَةَ كَمَا تَقْدُرُونَهَا فِي هَذِهِ الأَيَّامِ الطِّوَالِ ثُمَّ صَلُّوا ‏ ‏.‏ قَالَ رَسُولُ اللَّهِ ـ صلى الله عليه وسلم ـ ‏”‏ فَيَكُونُ عِيسَى ابْنُ مَرْيَمَ عَلَيْهِ السَّلاَمُ فِي أُمَّتِي حَكَمًا عَدْلاً وَإِمَامًا مُقْسِطًا يَدُقُّ الصَّلِيبَ وَيَذْبَحُ الْخِنْزِيرَ وَيَضَعُ الْجِزْيَةَ وَيَتْرُكُ الصَّدَقَةَ فَلاَ يُسْعَى عَلَى شَاةٍ وَلاَ بَعِيرٍ وَتُرْفَعُ الشَّحْنَاءُ وَالتَّبَاغُضُ وَتُنْزَعُ حُمَةُ كُلِّ ذَاتِ حُمَةٍ حَتَّى يُدْخِلَ الْوَلِيدُ يَدَهُ فِي فِي الْحَيَّةِ فَلاَ تَضُرَّهُ وَتُفِرُّ الْوَلِيدَةُ الأَسَدَ فَلاَ يَضُرُّهَا وَيَكُونُ الذِّئْبُ فِي الْغَنَمِ كَأَنَّهُ كَلْبُهَا وَتُمْلأُ الأَرْضُ مِنَ السِّلْمِ كَمَا يُمْلأُ الإِنَاءُ مِنَ الْمَاءِ وَتَكُونُ الْكَلِمَةُ وَاحِدَةً فَلاَ يُعْبَدُ إِلاَّ اللَّهُ وَتَضَعُ الْحَرْبُ أَوْزَارَهَا وَتُسْلَبُ قُرَيْشٌ مُلْكَهَا وَتَكُونُ الأَرْضُ كَفَاثُورِ الْفِضَّةِ تُنْبِتُ نَبَاتَهَا بِعَهْدِ آدَمَ حَتَّى يَجْتَمِعَ النَّفَرُ عَلَى الْقِطْفِ مِنَ الْعِنَبِ فَيُشْبِعَهُمْ وَيَجْتَمِعَ النَّفَرُ عَلَى الرُّمَّانَةِ فَتُشْبِعَهُمْ وَيَكُونَ الثَّوْرُ بِكَذَا وَكَذَا مِنَ الْمَالِ وَتَكُونَ الْفَرَسُ بِالدُّرَيْهِمَاتِ ‏”‏ ‏.‏ قَالُوا يَا رَسُولَ اللَّهِ وَمَا يُرْخِصُ الْفَرَسَ قَالَ ‏”‏ لاَ تُرْكَبُ لِحَرْبٍ أَبَدًا ‏”‏ ‏.‏ قِيلَ لَهُ فَمَا يُغْلِي الثَّوْرَ قَالَ ‏”‏ تُحْرَثُ الأَرْضُ كُلُّهَا وَإِنَّ قَبْلَ خُرُوجِ الدَّجَّالِ ثَلاَثَ سَنَوَاتٍ شِدَادٍ يُصِيبُ النَّاسَ فِيهَا جُوعٌ شَدِيدٌ يَأْمُرُ اللَّهُ السَّمَاءَ فِي السَّنَةِ الأُولَى أَنْ تَحْبِسَ ثُلُثَ مَطَرِهَا وَيَأْمُرُ الأَرْضَ فَتَحْبِسُ ثُلُثَ نَبَاتِهَا ثُمَّ يَأْمُرُ السَّمَاءَ فِي السَّنَةِ الثَّانِيَةِ فَتَحْبِسُ ثُلُثَىْ مَطَرِهَا وَيَأْمُرُ الأَرْضَ فَتَحْبِسُ ثُلُثَىْ نَبَاتِهَا ثُمَّ يَأْمُرُ اللَّهُ السَّمَاءَ فِي السَّنَةِ الثَّالِثَةِ فَتَحْبِسُ مَطَرَهَا كُلَّهُ فَلاَ تَقْطُرُ قَطْرَةٌ وَيَأْمُرُ الأَرْضَ فَتَحْبِسُ نَبَاتَهَا كُلَّهُ فَلاَ تُنْبِتُ خَضْرَاءَ فَلاَ تَبْقَى ذَاتُ ظِلْفٍ إِلاَّ هَلَكَتْ إِلاَّ مَا شَاءَ اللَّهُ ‏”‏ ‏.‏ قِيلَ فَمَا يُعِيشُ النَّاسَ فِي ذَلِكَ الزَّمَانِ قَالَ ‏”‏ التَّهْلِيلُ وَالتَّكْبِيرُ وَالتَّسْبِيحُ وَالتَّحْمِيدُ وَيُجْرَى ذَلِكَ عَلَيْهِمْ مَجْرَى الطَّعَامِ ‏”‏ ‏.‏ قَالَ أَبُو عَبْدِ اللَّهِ سَمِعْتُ أَبَا الْحَسَنِ الطَّنَافِسِيَّ يَقُولُ سَمِعْتُ عَبْدَ الرَّحْمَنِ الْمُحَارِبِيَّ يَقُولُ يَنْبَغِي أَنْ يُدْفَعَ هَذَا الْحَدِيثُ إِلَى الْمُؤَدِّبِ حَتَّى يُعَلِّمَهُ الصِّبْيَانَ فِي الْكُتَّابِ . رواه ابن ماجه, كتاب الفتن, باب فتنة الدجال وخروج عيسى ابن مريم وخروج يأجوج ومأجوج: رقم ٤٠٧٧  – “(একবার) রাসুলুল্লাহ আমাদের উদ্দেশ্যে খুৎবা দিলেন। তখন তিনি তাঁর খুতবায় আমাদেরকে যেসব কথা বলেছিলেন তার বেশির ভাগই ছিল দাজ্জাল’কে নিয়ে। তিনি তার ব্যাপারে আমাদেরকে সতর্ক করছিলেন। তাঁর বক্তব্যের মধ্যে এও বলেছিলেন যে, আল্লাহ যেদিন থেকে আদমের বংশধর সৃষ্টি করেছেন তার পর থেকে পৃথিবীতে দাজ্জালের ফিতনার চাইতে বড় আর কোনো ফিতনা হবে না। আর আল্লাহ এমন কোনো নবীকে পাঠান নাই, যিঁনি তাঁর উম্মতকে দাজ্জালের ব্যাপারে সতর্ক করেননি। আর (শুনে রাখো,) আমি (মুহাম্মাদ) হলাম নবীগণের মধ্যে সর্বশেষ (নবী) এবং তোমরা হলে উম্মতদের মধ্যে সর্বশেষ (উম্মত)। সে(ই দাজ্জাল) তোমাদের (এই উম্মতের) মধ্যে বের হবে। এর অন্যথা হবে না। আমি তোমাদের মাঝে বিদ্যমান থাকাবস্থায়েই যদি সে বের হয়, তাহলে প্রত্যেক মুসলমানের পক্ষ থেকে (ওর) প্রতিহতকারী হবো আমি (নিজেই)। আর সে যদি আমার (ইন্তেকালের) পরে বের হয়, তাহলে প্রত্যেক ব্যাক্তি নিজেই (দাজ্জালের ফিতনাকে) প্রতিহত করবে এবং (সে ক্ষেত্রে) আমার স্থলে (দয়াময় করুনাময়) আল্লাহ’ই প্রত্যেক (মুমিন) মুসলমানের উপরে তত্ত্বাবধায়ক থাকবেন। (ভাল করে দাজ্জালের বৈশিষ্ট জেনে রাখো)। নিশ্চই সে বের হবে ইরাক এবং শামের মাঝামাঝি (একটি) সংযোগস্থল (এলাকা) থেকে। পরে সে ফ্যাসাদ/দূর্যোগ সৃষ্টি করবে ডানে ও বামে। হে আল্লাহ’র বান্দাগণ! হে লোকসকল ! তোমরা (তার ফিতনার সময়ও আল্লাহ’র দ্বীনের উপরে) দৃঢ়পদে থেকো, (কোনো মতেই ইমান ছেড়ো না)। নিশ্চই (আজ) আমি তোমাদেরকে তার (এমন কিছু) বৈশিষ্টের কথা বলবো, যে (সকল) বৈশিষ্টের কথা আমার আগে কোনো নবী (তাঁদের উম্মতদেরকে) বলে যাননি। (শুনে রাখো,) নিশ্চই সে তার প্রথম দিকে (লোক সম্মুখে) বলবে: ‘আমি নবী’। আর (সত্য এই যে,) আমার পরে (আর কোনো) কোনো নবী নেই। এরপর দ্বিতীয় পর্যায়ে সে (লোকজনকে) বলবে: ‘আমি তোমাদের রব (প্রতিপালক প্রভু)’। আর (সত্য হল) তোমরা মাড়া না যাওয়া পর্যন্ত তোমাদের (প্রকৃত) রব (আল্লাহ তাআলাকে) তোমরা দেখতে পাবে না। আর নিশ্চই সে(ই খবীস দাজ্জাল) হবে অন্ধ। অথচ তোমাদের (প্রকৃত রব/প্রতিপালক প্রভু আল্লাহ তাআলা) অন্ধ নন। ওর দুই চোখের মাঝে (কপালের কাছে) লিখা থাকবে ‘কাফের’, যা প্রত্যেক মুমিন ব্যাক্তি পড়তে পারবে -(চাই) লেখাপড়া জাননেওয়ালা (হোক), আর (চাই) নিরক্ষর (হোক)। আর নিশ্চই ওর ফিতনার মধ্যে এও রয়েছে যে, ওর সাথে (মনোরম কৃত্রিম) জান্নাত ও (কৃত্রিম) দোযখ থাকবে। তবে তার দোযখটিই হচ্ছে জান্নাত এবং জান্নাতটি হচ্ছে দোযখ। যে ব্যাক্তি তার দোযখের (ফিতনার) সম্মুখীন হবে, সে যেন অবশ্যই (আল্লাহ তাআলা’র কাছে) পানাহ কামনা করে এবং অবশ্যই (সূরা) কাহফ-এর প্রথম (১০টি আয়াত) তিলাওয়াত করে। এতে তার উপরে (দাজ্জালের ওই কৃত্রিম দোয়খের শাস্তি) ঠান্ডা ও আরামদায়ক হয়ে যাবে, যেমনি ভাবে ইব্রাহিম (আ.)-এর উপরে আগুনের অবস্থা হয়েছিল। আর নিশ্চই তার ফিতনার মধ্যে এও রয়েছে যে, সে এক (গ্রাম্য) বেদুইনকে বলবে: ‘তুমি কি বলো, আমি যদি তোমার বাবা এবং তোমার মা’কে (কবর থেকে জীবিত করে তোমার সামনে) পাঠিয়ে দিই, তাহলে তুমি কি সাক্ষ্য দিবে যে, আমি তোমার রব (প্রতিপালক প্রভু)’? তখন সে বলবে: ‘হ্যাঁ (সাক্ষ্য দিবো)’। তখন দু’টি শয়তান (জ্বীন, যাদের একজন) তার পিতার (রূপে) এবং (অপরজন) তার মাতা’র রূপ ধারন করবে এবং উভয়ে তাকে বলবে: ‘হে আমার পুত্র! তার (তথা দাজ্জালের) অনুগত্য করো, নিশ্চই তিনিই তোমার রব’। আর নিশ্চই ওর ফিতনার মধ্যে এও রয়েছে যে, সে এক (যুবক) ব্যাক্তি’র উপরে চড়াও হয়ে পরে তাকে হত্যা করবে এবং করাত দিয়ে তাকে কাটবে। এমনকি (তার) দ্বিখন্ডিত (হওয়া শরীরটি দুদিকে আলাদা আলাদা হয়ে) পড়ে যাবে। তারপর সে বলবে: ‘তোমরা আমার এই বান্দার প্রতি দেখো, একে এখনই আমি পূনর্জীবিত করে আনছি। এরপরও কি (তোমরা) দাবী করবে যে, আমি ছাড়াও (তোমাদের) অন্য কোনো রব আছে’? তখন (বাস্তবে) আল্লাহ(ই) তাকে পূনর্জীবিত করে দিবেন। অথচ ওই খবিস (দাজ্জাল) তাকে বলবে: ‘(এখন বলো) কে তোমার রব?’ তখন সে(ই যুবকটি) বলবে: ‘আমার রব হলেন আল্লাহ। আর তুই হলি আল্লাহ’র দুশমন; তুই হচ্ছিস (সেই খবীস) দাজ্জাল (যার ভবিষ্যতবাণী আমাদের নবী মুহাম্মাদ করে গেছেন)। আল্লাহ’র কসম, (রাসুলুল্লাহ ﷺ-এর বাণীর হুবহু বাস্তবায়ন আমার নিজের চোখের সামনে খোদ্ আমারই সাথে হতে দেখে) তোর (দাজ্জাল হওয়ার) ব্যাপারে (আজ আমার যে ইমানী অন্তর্দৃষ্টি লাভ হল) এত পরিষ্কার অন্তর্দৃষ্টি  আজকের পূর্বে আমার (জীবনে আর) কখনো লাভ হয়নি’। আবু সাঈদ খুদরী রা.-এর সূত্রে বর্ণিত হয়েছে যে, রাসুলুল্লাহ এরশাদ করেছেন: ‘(শেষ জামানায় দাজ্জালের হাতে শহিদ হওয়া) আমার উম্মতের (মুমিনদের) মধ্যে এই ব্যাক্তি জান্নাতের সর্বোচ্চ মর্তবায় উন্নিত হবে’। (হাদিসের) রাবী বলেন, আবু সাঈদ খুদরী রা. বলেছেন: ‘আল্লাহ’র কসম, ওমর বিন খাত্তাব রা. ছাড়া অন্য আর কেউ এই ব্যাক্তি হতে পারে বলে আমরা মনে করতাম না। (কিন্তু পরে বুঝলাম যে, আমাদের ধারনা ভুল ছিল)। অবশেষে তিঁনি (দুনিয়া ছেড়ে) আল্লাহ’র পথে বিদায় নিলেন’। আর নিশ্চই ওর ফিতনার মধ্যে এও রয়েছে যে, সে আসমানকে বৃষ্টি বর্ষানোর নির্দেশ দিবে, তখন (আকাশ থেকে মুষুলধারে) বৃষ্টি বর্ষিত হবে। আবার সে জমিনকে ফলন দেয়ার নির্দেশ দিবে, তখন (জমিন) ফলন দিবে। আর নিশ্চই তার ফিতনার মধ্যে এও রয়েছে যে, সে একটি লোকালয় অতিক্রম করবে (এবং তাদেরকে তার ফিতনার দিকে আহবান করবে। কিন্তু), তখন (সেখানকার) লোকজন তাকে (তাদের রব হিসেবে মানতে) অস্বীকার করবে। ফলে তাদের গবাদী পশুপালের কোনো কিছুই ধ্বংস হওয়া থেকে রক্ষা পাবে না। নিশ্চই ওর ফিতনার মধ্যে এও রয়েছে যে, সে একটি লোকালয় অতিক্রম করবে (এবং তাদেরকে তার ফিতনার দিকে আহবান করবে)। এতে (সেখানকার) লোকজন তাকে (তাদের রব হিসেবে) সত্যায়ন করবে। তখন সে (তাদের জন্য) আসমানকে বৃষ্টি বর্ষানোর নির্দেশ দিবে, ফলে (তাদের উপরে) বৃষ্টি বর্ষিত হবে এবং জমিনকে নির্দেশ দিবে ফলন দেয়ার, ফলে (তাদের জমিনে) ফলন হবে। এমনকি সেদিন (বিকেলে/সন্ধায়) তাদের গবাদী পশুগুলো ফিরে আসবে তাদের (অন্যান্য) দিনগুলিরে চাইতে অধিক মোটাতাজা ও অধিক বড়সড় অবস্থায় ও উদরপূর্তী করে এবং দুধে স্তন ফুলিয়ে নিয়ে। নিশ্চই শুধু মক্কা ও মদিনা ব্যতীত পৃথিবীর এমন কোনো কিছু সে বাকি রাখবে না, যেখানে সে পদচারনা না করবে ও তার উপরে প্রবল না হবে। এই দুই (অঞ্চল)-এর এমন কোনো অলিগলি নেই, যেখানে সে আসবে, অথচ ফেরেশতাদেরকে (সেখানে) উন্মুক্ত তরবারী হাতে সাক্ষাত না পাবে। অবশেষে (উপায়ন্ত না দেখে) সে (মদিনার অদূরে একটি) বিচ্ছিন্ন জলাশয়ের নিকটে (অবস্থিত একটি) লাল টিলার কাছে (গিয়ে) অবতরণ করবে। তখন মদিনা তার অধিবাসিদেরকে নিয়ে তিনবার (ভীষন জোরে) প্রকম্পিত হয়ে উঠবে। তখন (মদিনার) মুনাফেক পুরুষ ও মুনাফিক নারী’র (মধ্যে এমন কেউ) বাকি থাকবে না, যে (মদিনা থেকে) বের হয়ে ওর কাছে না যাবে। বস্তুতঃ (আগুনের) হাঁপড় যেভাবে লোহার (মরিচা ও) নোংরাকে দূরীভূত করে দেয়, তেমনি ভাবে মদিনাও (তার ভিতর থেকে) নোংরা-খবিছ (মানুষ)কে (সময় মতো) দূরীভূত করে দেয়। (এই ঘটনার পর) ওই দিনটিকে ‘ইয়াউমুল খালাস’ (নাজাতের দিন) নামে ডাকা হবে’। এতে উম্মে শারিক বিনতে আবি উকাইর রা. জিজ্ঞেস করলেন: ‘ইয়া রাসুলাল্লাহ! সেদিন আরবরা কোথায় থাকবে’? তিনি বললেন: ‘সেদিন তারা (সংখ্যায়) হবে অতি অল্প; তাদের অধিকাংশই (সেদিন) বাইতুল মাকদিসে (অবস্থিত) গর্বিত (সন্তানদের মধ্যে শামিল) থাকবে। (সে সময়ে) তাদের ইমাম (আমীর/খলিফা/শাসক) হবে (আমারই মেয়ে ফাতেমার বংশধরের একজন) একজন নেককার পুরুষ (আল-মাহদী)। তাদের ইমাম যখন তাদেরকে নিয়ে ফজরের নামায পড়ার জন্য অগ্রসর হতে থাকবে, এমন সময় ঈসা ইবনে মারইয়াম (আসমান থেকে দু’ ফেরেশতার ডানায় ভর দিয়ে) তাদের (জামে’ মসজিদের) উপরে (পূর্ব দিকস্থ উজ্জল সাদা মিনারায়) নাজিল হবেন -ফজরের সময়। তখন (তাদের) সেই ইমাম (তার নামাযের ইমামতীর স্থান থেকে) পিছনে(র কাতারে) সরে আসতে থাকবে, যাতে ঈসা (আ. তাদের সকলের ইমাম হয়ে) লোকজনকে নিয়ে নামায আদায়ের জন্য সামনে অগ্রসর হন। তখন ঈসা (আ.) ওনার (বরকতময়) হাত দ্বারা তার (তথা আল-মাহদীর) দুই কাঁধের মাঝখানে ধরে তাকে বলবেন: ‘আপনি এগিয়ে গিয়ে (আমাদের ইমাম হয়ে) নামায পড়ান, কারণ এই (নামাযের) ইকামত দেয়া হয়েছে আপনার জন্য’। ফলে তাদের ইমাম তাদেরকে নিয়ে নামায পড়বে। সে যখন (নামায থেকে) অবসর হবে, তখন ঈসা আ. বলবেন: ‘তোমরা (মসজিদের) দরজা খুলে দাও’। ফলে (দরজা) খুলে দেয়া হবে। (দেখা যাবে দরজা’র) পিছনে দাজ্জাল (অবস্থান নিয়ে আছে)। তার সাথে থাকবে সত্তর হাজার ইহূদী, যাদের সকলেই থাকবে তরবারীতে (যুদ্ধাস্ত্রে) সজ্জিত এবং সবুজ গাত্রাবরনে আচ্ছাদিত। যখন তাঁর দিকে দাজ্জালের দৃষ্টি পড়বে, তখন সে গলে যেতে থাকবে, যেভাবে লবন পানিতে গলে যায়। সে ভেগে পালাতে শুরু করবে। ঈসা আ. বলবেন: ‘নিশ্চই তোর ব্যাপারে আমার একটি আঘাত (অপেক্ষা করছে), যা থেকে তোর বাঁচার কোনো উপায় নেই’। পরে তিঁনি পূর্ব-বাবে-লূদের কাছে তার সাক্ষাত পেয়ে তাকে হত্যা করবেন। পরে আল্লাহ (তাআলা মুসলমানদের হাতে ওই সকল) ইহূদীদেরকে পরাজিত করে দিবেন। তখন না পাথড়, না গাছপালা, না প্রাচীর, আর না (কোনো) প্রাণী -(মানে) আল্লাহ সৃষ্টি করেছেন -এমন কোনো কিছুই অবশিষ্ট থাকবে না, যার আড়ালে ইহূদীরা লুকাবে, অথচ আল্লাহ সেই জিনিসকে বাকশক্তি না দান করবেন এবং সে (একথা) না বলবে যে, ‘হে আল্লাহ’র বান্দা মুসলীম ! এই যে (এখানে) ইহূদী (লুকিয়ে আছে); এদিকে এসে তাকে হত্যা করো’; তবে শুধু গারক্বাদাহ (গাছ) ভিন্ন। কারণ ওটা হল তাদের গাছ, ওটা (এ জাতীয় কোনো) কথা বলবে না। রাসুলুল্লাহ ﷺ বলেছেন: ‘(ফিতনা ও বিপর্যয় সৃষ্টির জন্য পৃথিবীতে) তার দিনগুলো(র মোট পরিমাণ) হবে চল্লিশ বছর। একটি বছর হবে যেন অর্ধ বছর, একটি বছর হবে যেন এক মাস, একটি মাস হবে যেন এক সপ্তাহ, আর তার বাদবাকি দিনগুলো হবে যেন (একেকটা আচমকা আগুন থেকে ছিটকে পড়া) অগ্নিস্ফুলিঙ্গ (-এর মতো দ্রুতগামী)। (তখন এমনও হবে যে), তোমাদের (মুসলমানদের) কারোর সকাল হবে মদিনার (এক) দরজায়, (কিন্তু) সে (সেদিন দিনের আলোতে) অপর দরজায় গিয়ে পৌছতেই পারবেনা, এমনকি তার সন্ধা হয়ে যাবে’। তখন তাঁকে জিজ্ঞেস করা হল: ‘ইয়া রাসুলাল্লাহ! আমরা সেই ছোট্ট দিনগুলোতে কিভাবে নামায পড়বো’? তিনি বললেন: ‘আমরা (আমাদের এই জামানার) এইসব দীর্ঘ দিনগুলোতে যেভাবে নামায (-এর ওয়াক্ত) নির্ধারণ করে থাকি, তোমরা (মুসলমানরাও) তখন (সেভাবেই) নামায (-এর ওয়াক্ত) নির্ধারণ করে নিবে, তারপর নামায পড়বে’। রাসুলুল্লাহ ﷺ বলেছেন: ‘পরে ঈসা ইবনে মারইয়াম আ. আমার উম্মাতের মধ্যে (একজন) ন্যায়পরায়ন হাকাম (বিচারক) ও ইনসাফগার ইমাম (শাসক) হবেন। তিনি (আল্লাহ তাআলার নির্দেশে খুষ্টানদের) ক্রশকে ভেঙ্গে ফেলবেন, শুয়োর হত্যা করবেন, জিজিয়া তুলে দিবেন এবং সাদাকাহ (যাকাত) পরিত্যাগ করবেন। না ভেড়ার উপরে (যাকাত) ধার্য হবে, আর না উটের উপরে। (তাঁর জামানায় মানুষে মানুষে) দুশমনী ও পাষ্পরিক হিংসা-বিদ্বেষ উঠে যাবে। প্রত্যেক বিষধর প্রাণির বিষ নি:শ্বেস হয়ে যাবে। এমনকি শিশুছেলে তার হাতকে সাপের মুখে ঢুকিয়ে দিবে কিন্তু সেটি তার কোন ক্ষতি করবে না। শিশুকন্যা সিংহকে তাড়া করবে, কিন্তু সে তার কোনো ক্ষতি করবে না। নেকড়ে ভেড়ার সাথে এমন ভাবে থাকবে যেন সে তার (পাহারাদার) কুকুর। পৃথিবীটা শান্তিতে ভরে যাবে যেমনি ভাবে পানপাত্র পানি দ্বারা ভরে যায়। (তখন সকল মানুষের) কালেমাহ হবে একটা। সুতরাং, (তখন) আল্লাহ ছাড়া আর কারোর ইবাদত করা হবে না। যুদ্ধ-সরঞ্জামাদি নি:শ্বেস হয়ে যাবে। কুরায়েশদের রাজত্বের অবসান হবে। পৃথিবীটা হয়ে যাবে রূপার (তৈরী মূল্যবান) হাতধৌতকরণ পাত্রের মতো। (পৃথিবীতে তখন তোমাদের আদী পিতা নবী) আদমের জামানার ন্যায় (উর্বরা) ফলন হবে। এমনকি কয়েকজন লোক একটি আঙ্গুরের থোকার ধারে একত্রিত হবে (এবং তা খেয়েই) তারা পরিতৃপ্ত হবে। আবার কয়েকজন লোক একটি ডালিমের ধারে একত্রিত হবে (এবং তা খেয়েই) তারা পরিতৃপ্ত হবে। আর (মানুষজনের) ধ্বনসম্পদের মধ্যে ষাঢ়/বলদ হবে এমন এমন (উচ্চ মূল্যের), আর ঘোড়া হবে অতীব অল্প মূল্যের। লোকেরা জিজ্ঞেস বরলো: ‘ইয়া রাসুলাল্লাহ! ঘোড়ার মূল্য এত সস্তা হবে কেনো’? তিনি বললেন: ‘(কারণ) আর কখনো যুদ্ধের জন্য (ঘোড়ার পিঠে) আরোহন করা(র প্রয়োজন) হবে না’। জিজ্ঞেস করা হল: ‘ষাঢ়/বলদ এত বেশি (মূল্যের হবে) কেনো’? তিনি বললেন: ‘গোটা পৃথিবীতে (ব্যাপক হারে) চাষাবাদ হবে। আর দাজ্জাল বের হওয়ার আগে তিনটি বছর হবে চরম কষ্টের। মানুষ সে সময় ভীষন দুর্ভিক্ষে পড়ে যাবে। আল্লাহ (ওই তিনটি বৎসরের) প্রথম বছরে আসমানকে নির্দেশ দিবেন, সে যেন তার বৃষ্টির এক তৃতীয়াংশ (বর্ষানো) বন্ধ করে রাখে এবং জমিনকে নির্দেশ দিবেন, সে যেন তার ফলনের এক তৃতীয়াংশ (ফলানো) বন্ধ করে রাখে। এরপর আল্লাহ দ্বিতীয় বছরে আসমানকে (দুই তৃতীয়াংশ বৃষ্টি আটকে রাখার) নির্দেশ দিবেন, ফলে সে তার বৃষ্টির দুই তৃতীয়াংশ আটকে রাখবে এবং জমিনকে (দুই তৃতীয়াংশ ফলন আটকে রাখার) নির্দেশ দিবেন, ফলে সে তার ফলনের দুই তৃতীয়াংশ আটকে রাখবে। এরপর আল্লাহ তৃতীয় বছরে আসমানকে (তিন ভাগের তিন ভাগ বৃষ্টিই আটকে রাখার) নির্দেশ দিবেন, ফলে সে তার বৃষ্টির পুরোটাই আটকে রাখবে। ফলে এক ফোটা বৃষ্টিও হবে না। আর জমিনকে (তিন ভাগের তিন ভাগ ফলনই আটকে রাখার) নির্দেশ দিবেন, ফলে সে তার ফলনের পুরোটাই আটকে রাখবে। ফলে (জমিনে) কোনো সবুজ ঘাস/শাকসবজী (পর্যন্ত) জন্মাবে না। ফলে কোনো খুরদার প্রাণী অবশিষ্ট থাকবে না, তবে ব্যতীক্রম (ঘটবে শুধু তার ক্ষেত্রে) যা(র ব্যাপারে আল্লাহ (ব্যতীক্রম কিছু করতে) চাইবেন’। জিজ্ঞেস করা হল: ‘সে জামানায় লোকেরা কী করে জীবন ধারন করবে’? তিনি বললেন: ‘(তারা) তাহলীল (লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ), তাকবীর (আল্লাহু আকবার), তাসবীহ (সুবহানাল্লাহ) ও তাহমীদ (আলহামদু লিল্লাহ) বলতে থাকবে এবং ওগুলোই তাদের খাদ্যনালীতে প্রবাহিত হবে” [সুনানে ইবনে মাজাহ- ২/১৩৫৯ হাদিস ৪০৭৭; সুনানে আবু দাউদ, হাদিস ৪৩২২]