Uncategorized

ভারত -এর ৭টি কোম্পানী ISIS কে বিষ্ফোরক দ্রব্য সাপ্লাই দানে বিশ্বের ২য় বৃহত্তর দেশ

Spread the love

ভারত -এর ৭টি কোম্পানী ISIS কে বিষ্ফোরক দ্রব্য সাপ্লাই দানে বিশ্বের ২য় বৃহত্তর দেশ; ভারতের -এর ৭টি কোম্পানী এই Crime-এ জড়িত

কথায় আছে ‘চোরের মায়ের বড় গলা’। ‘বেটা বড় চোর হয়েও মানুষ হয়েছে’ -একথা জোর করে বিশ্বাস করে তার নির্লজ্জ মা’ যদি ‘চুরির বিরুদ্ধে’ বড় গলাবাজি করে এবং ‘চুরিকে না বলুন’ -এই কথাকে প্রচার করতে তাকে পাগলপানা দেখা যায়, তাহলে কেমটা লাগে…বলুন !!!

Conflict Armament Research (CAR) এবং EU-mandated study থেকে যেসকল তথ্য বেড়িয়ে এসেছে, তাতে দেখা যায়, সন্ত্রাসী সংগঠন Islamic State of Iraq and Syria (ISIS)-কে যে সকল দেশ বিষ্ফোরোক দ্রব্য তৈরীর উপাদান সরবরাহ করে আসছে, তাদের মধ্যে ভারত হল বিশ্বের ২য় বৃহত্তর দেশ ভারতের United Progressive Alliance (UPA) -এর শাসন আমলে ISIS-এর কাছে বিষ্ফোরোক ও এর উপাদান সাপ্লাই করা হয়েছে Improvised Explosive Devices (IEDs) প্রস্তুতের সহায়ক হিসেবে। ভারতের যে ৭টি কোম্পানী সরকারী নাইসেন্স নিয়ে ISIS-এর কাছে ৭০০ প্রকারের বিষ্ফোরোক দ্রব্য তৈরীর উপাদান সরবরাহের জমজমাট ব্যবসা করে যাচ্ছে, তাদের তালিকা দেয়া হল; (সাথে একটি মোবাইল কোম্পানীর নামও দেয়া হল)।  

 Indian Companies Supplying Materials 
Gulf Oil Corporation Detonating Cord
Solar Industries Detonating Cord
Premier Exprosives Detonating Cord & Detonators
Rajasthan Explosives & Chemicals Detonating Cord & Detonators
Chamundi Explosives Safety fuse
Economic Explosives Detonators
IDEAL Industrial Explosives Detonators
Nokia Solutions and Networks India Mobile Telephones 

 ISIS সন্ত্রাসীদের প্রায় সবাই ভারতের Nokia 105 RM-908 মোবাইল ফোন ব্যবহার করে যোগাযোগ রক্ষা করে দূরবর্তী জায়গায় বিষ্ফোরোন ঘটানোর জন্য।

বিস্তারিত জানার জন্য নিদেনপক্ষে নিম্নোক্ত ওয়েব পেজগুলো একবার হলেও চেক করে দেখুন:-

ভারতের বাবরী মসজীদ’কে কেন্দ্র করে সৃষ্ট গুজরাট রায়োটের প্রধান হোতা নরেন্দ্র মোদী সাহেব খুব চিন্তিত ডা. জাকির নায়েককে নিয়ে, কারণ হিসেবে তার সরকার দালাল মিডিয়ার সাহায্যে একথা প্রচার করছে যে, ঢাকার হোলি আর্টিজেনে সন্ত্রাসী হামলাকারীদের একজন নাকি ডা. জাকির নায়েকের লেকচার দ্বারা প্রভাবিত ছিল। একথার প্রধান সূত্র তারা পেয়েছিল বাংলাদেশের ডেইলি-ষ্টার পত্রিকায়, আর সেটাকেই মোক্ষম সুযোগ হিসেবে লুফে নিয়েছিল। যারা বিবেককে আজও টাকার কাছে বিক্রি করেনি, সেসকল সচেতন বুদ্ধিমান মানুষ মাত্রই জানে আজকের খবিস রাজনীতি ও মিডিয়া ময়দানে তারাই রাজার হালে টিকে আছে যারা প্রতিনিয়ত মিথ্যা কথা বলে, উপর্যুপুরি প্রতারনামূলক প্রচারণার আশ্রয় নেয়, ঘটনা ঘটায় ও নিউজ বানায়, ক্ষমতাকে কাজে লাগিয়ে গুন্ডামী ও বাটপারী করতে পারে, পারে সিমারের পাষাণ হার্ট নিয়ে মানুষ খুন করতে বা করাতে।

নরেন্দ্র মোদী ও তার সরকার বাস্তবেই কি আই.এস.আই.এস’কে নিয়ে খুব চিন্তিত বলে মনে করে আছেন ? নাকি তিনি তাদের সাথে গড়াগড়ি খেয়ে অস্ত্র ব্যাবসা চালাচ্ছেন ধুমিয়ে।

ইন্ডিয়া / ভারত’কে চিনতে ভুল করছেন নাতো ?!!! এত লোক থাকতে বিশেষ করে ডা. জাকির নায়েকের পিছনে লাগার নেপথ্য কারণ কি মনে করেছেন ডেইলি-ষ্টার পত্রিকার ওই মিথ্যা ও প্রতারণার আশ্রয়ে প্রকাশিত ওই নিউজটি ? যারা আই.এস.আই,এস-কে বিষ্ফোরোক দ্রব্য সাপ্লাইয়ের এত জমজমাট ব্যাবসা করার কাজে বিশ্বের ২য় বৃহত্তর দেশ, তাদের গোয়েন্দা সংস্থা র’-এর নজরে কি এত বড় খরর নেই বলে মনে করেন? আপনি কি মনে করে বসে আছেন যে, বাংলাদেশে র’-এর গোয়েন্দারা ছদ্দবেশে নেই? রামপাল-বিদ্যুতকেন্দ্রের পুরো প্রজেক্টটিকে ভারতের কয়েকজন ব্যবসায়ীর হাতে দেয়ার বিষয়টিকে আওয়ামী হাসিনা সরকার কার্যকরী করতে পারছিল না বাংলাদেশের সচেতন জনগণের বিরোধীতার মুখে, সেখানে গুলশানের হোলি আর্টিজেনে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনাটির মাত্র কয়েকদিনের মধ্যেই কাউকে কিছু না জানতে বা বলবার সুযোগ না রেখে আওয়ামী হাসিনা সরকার চোরের মতো ভারতের সাথে রামপাল-বিদ্যুতকেন্দ্রের চুক্তি পাকাপোক্ত করে ফেললো ! তাহলে, গুলশানের হোলি আর্টিজেনে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনাটি কি জনগণের নজর অন্যদিকে ব্যাস্ত রাখার নাট্য-কৌশল ছিল, যাতে বাংলাদেশের জনগণ ও বিশ্বকে ওসব বিষয়কে কেন্দ্র করে মনমগজ ব্যাস্ত রাখে, আর এদিকে ভারতের ব্যবসায়ীদের সাথে রামপাল-বিদ্যুতকেন্দ্রের চুক্ত ‘র কাম সেরে নেয়া যায় চট করে? হাসিনা বাস্তব কথাই বলেছে- ’আমরা ভারতকে যা দিয়েছি সেটা ভারত সারা জীবন মনে রাখবে’। তা-ই বৈকি আফা !!!!

 

الله اعلم بالصواب و أخر دعوانا عن الحمد لله رب العالمين و الصلاة و السلام على رسوله محمد و على أله و أمّته و استغفر الله و أتوب إليه

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *